মেইন ম্যেনু

পিএসএল হেরেও শেষ চারে সাকিব বাহিনী

সাকিব আল হাসানের করাচি কিংসের ভাগ্যটা খুবই ভালো বলতে হবে। কারণ, পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) গ্রুপ পর্বের সর্বশেষ ম্যাচে হেরে বিদায় প্রায় নিশ্চিত হয়ে গিয়েছিল করাচির; কিন্তু ভাগ্যে থাকলে ঠেকায় কে!

গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচে ইসলামাবাদের কাছে লাহোর কালান্দার্সের ৫ উইকেটে হারই করাচিকে তুলে দিল প্লে-অফ রাউন্ডে।

বুধবার দুবাই ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট স্টেডিয়ামে শহিদ আফ্রিদির পেশোয়ার জালমির মুখোমুখি হয়েছিল করাচি কিংস। প্রথমে ব্যাট করে পেশোয়ারের সামনে ১৫৩ রানের চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয় করাচি।

ব্যাট করতে নেমে প্রথম দিকে পেশোয়ার যে স্লো গতিতে এগুচ্ছিল, তাতে মনে হয়েছিল করাচিই জয় পেতে যাচ্ছে ম্যাচটিতে। কিন্তু শেষ মুহূর্তে অস্ট্রেলিয়ান ব্র্যাড হজের বিধ্বংসী ব্যাটিংই সহজ জয় এনে দিল পেশোয়ারখে।

এমন পরাজয়ের ফলে করাচির বিদায় নিশ্চিতই ধরে নিয়েছিল সবাই। কারণ, ৮ ম্যাচ থেকে মাত্র ৪ পয়েন্ট নিয়ে প্লে-অফ রাউন্ডে ওঠা যে কারও জন্য অসম্ভব। কিন্তু ভাগ্যের ফেরে পড়ে গ্রুপ পর্ব থেকে বিদায় নিল ক্রিস গেইলের দল লাহোর কালান্দাসই।

সৌভাগ্য যেমন করাচির সঙ্গী হয়েছে, তেমনি দুর্ভাগ্য সঙ্গী হয়েছে লাহোরের। মঙ্গলবারই কোয়েটা গ্ল্যাডিয়েটর্সের বিপক্ষে জয় পেয়ে গিয়েছিল প্রায় লাহোর। ২০১ রানের চ্যালেঞ্জ দেয়ার পর জয় আশাই করতে পারে যে কোন দলের অধিনায়ক।

কিন্তু উল্টো কোয়েটা গ্ল্যাডিয়েটর্সের বিধ্বংসী ব্যাটিং, বিশেষ করে আফগান তারকা মোহাম্মদ নবির দুরন্ত ব্যাটিংই জিতিয়ে দিল কোয়েটাকে। ওই ম্যাচটি জিততে পারলে, লাহোরকে শেষ ম্যাচের দিকে তাকিয়ে থাকতে হতো না।

ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের বিপক্ষে শেষ ম্যাচে অবশ্যই জয় প্রয়োজন ছিল লাহোরের। এই ম্যাচে দলের সেরা তারকা ক্রিস গেইলকে ছাড়াই খেলতে নামে লাহোর।

তবুও সোহাইব মাকসুদের ৫৭ এবং উমর আকমলের অপরাজিত ৭২ রানের ওপর ভর করে ইসলামাবাদের সামনে ১৫০ রানের চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেয় লাহোর। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ব্র্যাড হ্যাডিনের ৫৪ আর মিসবাহ-উল হকের ১৯ বলে ৩৮ রানের ওপর ভর করে ১ ওভার হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় ইসলামাবাদ।

শেষ পর্যন্ত ২টি করে জয় নিয়ে করাচি এবং লাহোরের পয়েন্ট হলো সমান ৪ করে। কিন্তু রান রেটের হিসেবে পেছনে পড়ে ড়েলো লাহোর কালান্দার্স। তাদের রান রেট -০.৫৩৬। অপরদিকে করাচির রান রেট -০.০৩৬।

ফলে শেষ চারের টিকিট পেয়ে গেলো করাচিই। যদিও তাদেরকে খেলতে হবে ইলিমিনেটর রাউন্ড। ২০ ফেব্রুয়ারি ইলিমিনেটর রাউন্ডে ইসলামাবাদের মুখোমুখি হবে সাকিবের করাচি কিংস।