মেইন ম্যেনু

পুজায় বেছে নিন লাল লিপস্টিক

বলা হয় দুর্বলচিত্তের নারীদের জন্য লাল লিপস্টিক নয়। তবে লাল লিপস্টিক সবাই পরতে পারেন। গায়ের রং বা ঠোঁটের আকৃতি কেমন তাতে কিছু যায় আসে না। সবটাই নির্ভর করে আচরণের উপর। লাল লিপস্টিক ক্লাসিক একটা সাজ। কিন্তু যেমন তেমন করে লাল লিপস্টিক লাগালে দেখতে সস্তাও লাগতে পারে। তাই সাজে সতর্ক-

অনেকের কাছে লাল ঠোঁট মানেই মেরিলিন মনরো কিংবা ম্যাডোনা। তবে বাঙালি মেয়েদেরও লাল লিপস্টিকে দারুণ মানায়। লাল লিপস্টিক পরতে কোনও অনুষ্ঠান লাগে না। তবে ঠোঁট যেন আর্দ্র থাকে। ঠোঁটের স্ক্রাবিং ভাল ভাবে করা উচিৎ লিপস্টিক লাগানোর আগে। আর আউটলাইনটাও যেন সুন্দর হয়।

আপনার মেক আপ কিটে লাল লিপস্টিক থাকলে দেখবেন খুব আত্মবিশ্বাসী লাগছে। ঠোঁটে এবং নখে লাল রং এবং হালকা চোখের মেক আপে স্মার্ট এবং আত্মবিশ্বাসী লাগবে আপনাকে। তাই একবার হলেও ট্রাই করুন লাল লিপস্টিক।

তবে লিপস্টিকের লাল রং বেছে নেওয়ার কিছু শর্ত রয়েছে। যাদের গায়ের রং ফর্সা, ত্বকে গোলাপি আভা থাকলে কমলা আভা দেওয়া কোরাল রেড বা ম্যাট রেড লিপস্টিক লাগাতে পারেন। যাদের গায়ের রং সোনার মতো তারা লাগাতে পারেন কোরাল রেড বা ওয়ার্ম ব্রিক রেড।

মাঝারি গায়ের রং যাদের, তাদের জন্য টকটকে লাল বা ক্র্যানবেরি শেড অথবা গোলাপি লাল। আর যরা শ্যামলা- নীলচে লাল আর শীতল লালের শেড ভাল লাগবে। ডার্ক চেরি, বার্গাণ্ডি, ওয়ার্ম ব্রিক রেড, ডার্ক জ্যাম রংগুলো লাগাতে পারেন। খুব উজ্জ্বল রং লাগাবেন না।

নিখুঁত লাল ঠোঁটের জন্য আপনার লিপস্টিকের চেয়ে এক শেড গাঢ় লিপ পেন্সিল দিয়ে ঠোঁটের আউটলাইন আঁকুন। লিপ ব্রাশ দিয়ে ভাল করে ব্লেন্ড করুন ঠোঁটের সঙ্গে। টিসু দিয়ে অতিরিক্ত রং শুষে নিন। লিপলাইনের চারপাশে বুলিয়ে নিন ট্রান্সলুসেন্ট পাউডার। গ্লসি দেখাতে চাইলে নীচের ঠোঁটের মাঝখানে লিপগ্লস লাগিয়ে ব্লেন্ড করে নিন।