মেইন ম্যেনু

পুতুল যখন কথা বলে!

এ যেন চোখে দেখেও বিশ্বাস হয়না৷ হ্যাঁ, এমনই তো সুইডেনের এই কন্যা৷ নাম জেনিফার জ্যাকসন৷ বয়স মাত্র তেইশ বছর৷ তা কি করেছেন এই কন্যে জানেন? খেয়াল পাখনায় ভর করে আপাদমস্তক বদলেই ফেলেছেন নিজেকে৷ একেবারে যেন জ্যান্ত পুতুল৷ এ পুতুল কথা বলে, নড়েচড়ে, করে অনলাইন শপিংও৷ হ্যাঁ, আর তার জনপ্রিয়তা এমনই যে, বাড়ি থেকে বেরোনো প্রায় মুশকিল হয়ে পড়েছে।

এ শখ তার আজকের নয়৷ গয়নাগাটির সঙ্গে সখ্যতা বহুদিনের৷ ভালোবাসেন সাজগোজ নিয়ে নানান ধরণের এক্সপেরিমেন্ট করতে৷ আর সেখান থেকেই পুতুল হওয়ার এমন এক ইচ্ছেকে সযত্নে লালন পালন করে গিয়েছেন দীর্ঘদিন৷ আর একসময় সেই ইচ্ছেকেই দিয়েছেন বাস্তবের রুপ৷ আর এসব করতে গিয় তার পকেট হাল্কাও হয়েছে অনেক৷ কিন্তু তাতে কি? নিজের ভালোলাগা, জনপ্রিয়তা, এসবের জন্য একটু না হয় এসব হলোই৷

পুতুলের মতোই সুন্দর সুন্দর পোশাক, কৃত্রিম-রঙিন মাথার চুল, সঙ্গে মানানসই জুতা, গয়নাগাটি, সব যেন একেবারে নিখুঁত৷ আর এই ছাঁচে নিজেকে ফেলে, জেনিফার হয়ে উঠেছেন জীবন্ত পুতুল৷ হয়ে উঠেছেন আলোচনার অন্যতম এক বিষয়৷ আর তার এই ইচ্ছেকে যিনি সাদরে গ্রহণ করে নিয়েছেন, তিনি হলেন জেনিফারের বয়ফ্রেন্ড কোনি৷ জেনিফারের এই কান্ডকারখানায় আপত্তি নেই তার পরিবারেরও৷

কন্যার এই অন্যধরনের ইচ্ছায় আবার তাকে অনেকসময় ফেলেছে বিড়ম্বনায়৷ ক্যামেরার ফ্ল্যাশবাল্বের ঝলকানিতে মাঝেমধ্যেই এখন মেজাজ হারিয়ে ফেলেন তিনি৷ না নিজের প্রচারের চাহিদা বিশেষ নেই তার৷ কিন্তু তাতে কি? তার প্রতিটি পদক্ষেপই যে এখন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে৷