মেইন ম্যেনু

পুরস্কার বিতরণের মাধ্যমে ডিজিটাল মেলা ও ইন্টারনেট সপ্তাহের সফল সমাপ্তি কলারোয়ায়

কলারোয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বলেন,জিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার সপ্নদ্র্রোষ্টা ছিলেন বঙ্গবন্ধু কন্যা বাংলাদেশের সফল প্রধান মন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা। আজ তারই সন্তান সজিব ওয়াজেদ জয় তার মায়ের সেই স্বপকে বাস্তবে রুপ দিয়েছেন। তিনি বলেন, ২০০৮ সালে বর্তমান প্রধান মন্ত্রী যখন ডিজিটাল বাংলাদেশ ঘোষনা করেন ,অনেকে তখন এটাকে ভাল ভাবে মেনে নিতে পারেনি। সেদিন ডিজিটাল বাংলাদেশকে নানা ভাবে নানা ভাষায় উপহাস করেছিল। তিনি গত শনিবার কলারোয়া উপজেলা পরিষদ আয়োজিত দুই দিন ব্যাপি ডিজিটাল মেলা ও ইন্টারনেট সপ্তাহ ২০১৫ এর সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।

কলারোয়া উপজেলা পরিষদ চত্বরে আয়োজিত ঐ অনুষ্ঠানে কলারোয়া উপজেলা পরিষদের নির্বাহী কর্মকর্তা উত্তর কুমার রায় এর সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়াম্যান আমিনুল ইসলাম লাল্টু,কৃষি কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন,সিনিয়র মৎস কর্মকর্তা মোর্শারফ হোসেন, থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আবু সালেহ মাসুদ করিম,উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক আহবায়ক সাজেদুর রহমান খান চৌধুরী, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মাষ্টার আমানউল্লাহ, ভাদিয়ালী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আজহারুল ইসলাম, উপজেলা আই টি সহকারী প্রোগ্রামার শাহাদৎ হোসেন প্রমূখ।

প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে আরো বলেন, বাংলাদেশ ডিজিটাল যুগে প্রবেশ করার কারনে সারা বিশ্ব আজ মানুষের হাতের মুঠোই এসে গেছে। মোবাইল,ল্যাপটপ,ডেক্সটপের মাধ্যমে মুহুর্তের মধ্যে দেশ বিদেশের খবর দেখতে পাচ্ছে। ইন্টারনেটের মাধ্যমে আজ কোটি কোটি মানুষ উপকৃত হচ্ছে। শিক্ষা,কৃষি,স্বাস্থ্য সহ প্রতিটি ক্ষেত্রে মানুষ দ্রুত সেবা গ্রহন করতে পাচ্ছে। তিনি ইন্টারনেটের অপব্যবহার বন্ধ করে এর সুষ্ঠ ও সঠিক ব্যবহার আরো বেশি করে ইন্টারনেট ই্উজার তৈরী করার জন্য সকলের প্রতি আহবান জানান।

ডিজিটাল কার্যক্রমকে এেিগয়েূ নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে বিশেষ অবদান রাখার জন্য কলারোয়ার ৫ নং কেড়াগাছি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ভুট্ট লাল গাইনকে শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান, ডিজিটাল কন্টেইন তৈরীর জন্য হঠাৎগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ও আইটি প্রশিক্ষক মোস্তাফিজুর রহমানকে দৃষ্টি নন্দন ক্রেষ্ট উপহার দেওয়া হয়। এ ছাড়া বিভিন্ন প্রতিযোগীতায় অংশ কারী বিজয়ী প্রতিষ্ঠান ও ছাত্র/ছাত্রী মধ্যে ও পুরস্কার বিতরণ করা হায়।

উল্লেখ গত ১১ সেপ্টেম্বর সাতক্ষীরা জেলা প্রষাসক নাজমুল আহসান প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থেকে দুই দিন ব্যাপি ঐ মেলার আনুষ্ঠানিক ভাবে উদ্ভোদণ করেন।