মেইন ম্যেনু

পুলিশকে কামড়ালো যুবতী, লালায় ছিল বিষ!

গাড়ির রেজিস্ট্রেশন নম্বর দেখে সন্দেহ হয়েছিল পুলিশের। সেই মতো গাড়িটি আটকানো হয়। নম্বর প্লেট ও লাইসেন্সের মেয়াদ শেষ। গাড়ির বিমার কোনো কাগজও নেই।

শুধু তাই নয়, চালককে আটক করে গাড়ি তল্লাশির পর পুলিশ নেশাজাতীয় কিছুর সন্ধান পায়। সেই মতো অভিযুক্ত মহিলা চালককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। কিন্তু পরিবর্তে ওই পুলিশকর্মীর জন্য অপেক্ষা করছিল বিপদ!

পুলিশের গাড়িতে ওঠার পর থেকেই চিৎকার শুরু করে মেমফিসের বাসিন্দা অভিযুক্ত মহিলাচালক ডেয়টন স্মিথ। শৌচকর্মের জন্য গাড়ি থামানোর দাবি জানান তিনি।

কিন্তু পুলিশকর্মীরা তাকে জানিয়ে দেন, থানা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে। এতেই উত্তেজিত ওই মহিলা গাড়ি থেকে লাফ মেরে পালানোর চেষ্টা করেন।

কিন্তু ধরাও পড়ে যান। পুলিশকর্মীদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি শুরু হয় তার। সেসময়ই এক পুলিশকর্মীর হাতে কামড়ে রক্ত বের করে দেন স্মিথ।

এরপর মেডিক্যাল পরীক্ষার জন্য স্মিথকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে সত্যি জানতে পারে পুলিশ। AIDS রয়েছে অভিযুক্ত চালকের।

চিকিৎসকদের একথা নিজেই জানায় স্মিথ। এরপরই যেই পুলিশকর্মীকে তিনি কামড়ে দিয়েছিলেন, তার প্রাথমিক চিকিৎসা করা হয়। কিন্তু তার শারীরিক পরিস্থিতি নিয়ে মুখ খুলতে চায়নি মেমফিস পুলিশ।

স্মিথের বিরুদ্ধে একাধিক ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে। ৫০ হাজার মার্কিন ডলার জরিমানার পাশাপাশি আপাতত জেল হেফাজতে রাখা হয়েছে তাকে।