মেইন ম্যেনু

‘পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর’

রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেছেন, ‘আশা করছি অতি শিগগিরই পূর্ণাঙ্গ রায় পাব। পূর্ণাঙ্গ রায় প্রকাশের পর মুজাহিদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর প্রক্রিয়া শুরু হবে। তবে রিভিউ করলে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর প্রক্রিয়া স্থগিত হয়ে যাবে।’

মঙ্গলবার সকালে আপিল বিভাগ জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেল আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখার পরে সুপ্রিম কোর্টে নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি একথা বলেন।

মাহবুবে আলম বলেন, ‘পূর্ণাঙ্গ রায় না পাওয়া পর্যন্ত মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার জন্য অপেক্ষা করতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘বুদ্ধিজীবী হত্যার অভিযোগ মুজাহিদের বিরুদ্ধে সবচেয়ে বড় অভিযোগ। এই অভিযোগে তাকে মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করেছেন উচ্চ আদালত।’

মুজাহিদ আল-বদর নেতা ছিলেন কি না, এমন প্রশ্নের উত্তরে অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের সময় বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় মুজাহিদকে আল-বদর নেতা হিসেবে আখ্যা দিয়ে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে।’

বুদ্ধিজীবী হত্যা মামলায় প্রথম রায় এটি বলেও উল্লেখ করেন মাহবুবে আলম। তিনি বলেন, ‘পৃথিবীর ইতিহাসে এমন ঘটনা আর কোথাও নেই, যেখানে নিজেরা নিজ দেশের বুদ্ধিজীবীদের নিধন করেছে।’

রাষ্ট্রের প্রধান এ আইন কর্মকর্তা বলেন, ‘আল-বদররা যেসব বুদ্ধিজীবীদেরকে হত্যা করেছে, সেসব বুদ্ধিজীবীদেরকে আর কখনোই ফিরে পাব না। তবে শান্ত্বনা এটাই যে, অপরাধীদের শাস্তি হয়েছে। আজকের এই শাস্তির ফলে কমপক্ষে বুদ্ধিজীবীরা সবাই খুশি।’

তিনি বলেন, ‘বুদ্ধিজীবীদের হত্যাটা পরিকল্পনা ও নীল নকশার ফলে হয়েছে। মুজাহিদের উস্কানিমূলক বক্তব্যের ফলেই এই হত্যাকাণ্ড হয়েছে।’

আল-বদররা যে ক্ষতি করেছে তা এক শতাব্দীতেও পূরণ হবে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘আল-বদররা জাতিকে মেধাশূন্য করার পরিকল্পনা করেছিল। হিটলারের হিংস্রতা এবং আল-বদরদের হিংস্রতার মধ্যে আমি কোনো তফাৎ দেখি না।’