মেইন ম্যেনু

পৃথিবীতে আরো একটি বৃহদাকার উল্কার পতন

পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল ভেদ করে গত ৬ ফেব্রুয়ারি আটলান্টিক মহাসাগরে আছড়ে পড়েছে বৃহদাকার একটি উল্কা। ২০১৩ সালের পর থেকে পৃথিবীতে আছড়ে পড়া উল্কাগুলোর মধ্যে এটি বৃহত্তম। এর আগে ২০১৩ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি রাশিয়ার চেলিয়াব্লিংক্সে এর চেয়েও বৃহৎ একটি উল্কা আছড়ে পড়েছিল, যা ‘চেলিয়াব্লিংক্স বিস্ফোরণ’ নামে পরিচিত।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গত ৬ ফেব্রুয়ারি ব্রাজিল উপকূলের কাছে ছিটকে পড়ে মহাশূন্য থেকে আসা উল্কাটি। জ্বলন্ত অবস্থায় এটি থেকে ১৩ হাজার টন পরিমাণ টিএনটি শক্তি নির্গত হয়।

২০১৩ সালে মহাশূন্য থেকে রাশিয়ার চেলিয়াবিংক্সে আসা উল্কাটি আঘাতে অন্তত ১ হাজার মানুষ আহত হয়। সেই সময়ে পাথরটি থেকে ৫ লক্ষ টন টিএনটি শক্তি নির্গত হয়েছিল।

আটলান্টিকের ওপর আছড়ে পড়া পাথরটি এতোদিন খুব একটা আলোচনায় আসেনি। সম্প্রতি মার্কিন গবেষণা সংস্থা নাসা তাদের ওয়েবসাইটে এই ঘটনাটি নিবন্ধন করলে তা আলোচনা সৃষ্টি করে। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩০ কিলোমিটার ওপর দিয়ে উড়ে গিয়ে ব্রাজিলের মূল ভূখণ্ড থেকে ১ হাজার কিলোমিটার দূরে আঘাত হানে উল্কাটি।

গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিবছর নানা আকারের অন্তত ৩০টি গ্রহাণু পৃথিবীতে আছড়ে পড়ে। পৃথিবীর বেশিরভাগ অঞ্চল পানিতে পূর্ণ হওয়ার কারণে এগুলো পানির ওপরই এসে পড়ে। তাই লোকালয়ের তেমন একটা ক্ষয়ক্ষতি হয় না।

এ বিষয়ে মহাকাশ বিজ্ঞানী ফিল প্লেইট বলেন, আগেরটির তুলনায় এটা খুবই ছোট ছিল। এমনকি এই ঘটনা ঘটে যাওয়ার প্রায় এক সপ্তাহ পার হয়ে যাওয়ার পরেও অনেকে জানতে পারেনি বিরল এই ঘটনাটি সম্পর্কে।



« (পূর্বের সংবাদ)