মেইন ম্যেনু

পৌর নির্বাচন: প্রতিদ্বন্দ্বীকে ঘায়েল করতে শিবির তকমা

খুলনার পাইকগাছায় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে দলের প্রার্থীকে ‘সাবেক শিবির নেতা’ বলে প্রচার চালানোর অভিযোগ উঠেছে দলেরই অন্য দুই নেতার বিরুদ্ধে।

এই আসনে মনোনয়ন পেয়েছেন বর্তমান মেয়র সেলিম জাহাঙ্গীর। পাইকগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়কও তিনি। মনোনয়ন চেয়ে পাননি পৌর আওয়ামী লীগের আহবায়ক শেখ কামরুল হাসান টিপু ও জেলা যুবলীগ নেতা আনিসুর রহমান মুক্ত।

টিপু ও মুক্তর দাবি, সেলিম জাহাঙ্গীর জামায়াত পরিবারের সন্তান। ছাত্র জীবনে তিনি উপজেলা ছাত্র শিবিরের সাবেক সভাপতিও ছিলেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় তার বাবা শান্তি কমিটির সদস্য ছিলেন। তাই তাকে মনোনয়ন দেয়ায় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা তার পক্ষে নামবেন না। তবে জাহাঙ্গীর বলছেন, সবই মিথ্যা। দুই প্রতিদ্বন্দ্বী কুৎসা রটাচ্ছে তার নামে।

এই আসনে স্পষ্টত দুই ভাগে বিভক্ত আওয়ামী লীগ। দলের মধ্যে এই বিভক্তি নির্বাচনের ফলাফলে প্রভাব ফেলার আশঙ্কা করছেন দলের নেতা-কর্মীরাই।

২০০৮ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে আওয়ামী লীগে যোগদান করেন সেলিম জাহাঙ্গীর। ২০১০ সালের পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের সমর্থন পেয়ে জিতেন তিনি। তখন তার বিরুদ্ধে শিবির সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ করেনি আওয়ামী লীগের কেউ। ২০১৪ সালে পাইকগাছা উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বাক কমিটির সদস্য হন জাহাঙ্গীর।

জাহাঙ্গীরকে সমর্থন দিয়ে মেয়র নির্বাচনে জেতানোর পাঁচ বছর পর কেন এখন তার বিরুদ্ধে শিবির সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ আনা হচ্ছে-জানতে চাইলে পাইকগাছা পৌর আওয়ামী লীগের আহবায়ক শেখ কামরুল হাসান টিপু ঢাকাটাইমসকে স্পষ্ট কোন জবাব দিতে পারেননি। তিনি বলেন, ‘চাচা আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য সোহরাব আলী সানার মাধ্যমে আওয়ামী লীগে যোগ দেন জাহাঙ্গীর। কিন্তু তার পরিবার তো জামায়াতের সঙ্গে জড়িত। আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে থেকে কীভাবে জামায়াত পরিবারের সন্তানকে সমর্থন করবো?’।

মনোনয়ন না পেয়ে দলের প্রার্থীকে ঘায়েল করার জন্যই কি এই অভিযোগ তোলা হচ্ছে?- জানতে চাইলে টিপু বলেন, ‘আমি শহীদ পরিবারের সন্তান। আমার বাপ চাচারা সবাই মুক্তিযোদ্ধা। আমাদের পরিবারের সবাই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। কিন্তু জাহাঙ্গীর তো জামায়াত পরিবারের সন্তান। তাকে কীভাবে আমি সমর্থন করবো’।

তবে সেলিম জাহাঙ্গীর বলেন, ‘টিপুকে মনোননয়ন না দেয়ায় আমার বিরুদ্ধে এলাকায় গুজব ছড়াচ্ছে। ফটোশপে গোলাম আযমের সাথে আমার ছবি যুক্ত করে ব্যর্থ প্রচারণা চালিয়েছে। এতে উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতারাই টিপুকে গালমন্দ করেছেন’।

জাহাঙ্গীর বলেন, ‘টিপুই পাইকগাছা উপজেলা শিবিবিরের সাবেক সভাপতি ছিলেন। সেক্রেটারি ছিলেন কামাল আহমেদ। তিনি বর্তমানে ইংল্যান্ডে আছেন। টিপু একসময় এলডিপিরও আহ্বায়ক ছিলেন। আমি পাইকগাছায় বড় হয়েছি। আমি যদি অন্য রাজনীতির সাথে যুক্ত থাকতাম তাহলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাকে মনোনয়ন দিতেন না’।



« (পূর্বের সংবাদ)