মেইন ম্যেনু

প্রথম ওয়ানডেতে অস্ট্রেলিয়ার সহজ জয়

কয়েকদিন আগের মর্যাদার অ্যাশেজে সিরিজ হারার স্মৃতিটা এখনো তরতাজা অস্ট্রেলিয়ার। তবে ওই শোক কাটিয়ে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ইংল্যান্ডের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের শুরুটা দারুণ করেছে স্টিভেন স্মিথের দল। বৃহস্পতিবার প্রথম ওয়ানডেতে স্বাগতিকদের বিপক্ষে ৫৯ রানের সহজ জয় পেয়েছে অসিরা। অস্ট্রেলিয়ার হয়ে সর্বোচ্চ ৭১ রান করেন উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান ওয়েড।

সাউথ্যাম্পটনের দ্য রোজ বৌলে টস জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেন অস্ট্রেলিয়া অধিনায়ক স্মিথ। ওপেনার জো বার্নস ও ডেডিভ ওয়ার্নার অস্ট্রেলিয়ার হয়ে দূর্দান্ত সূচনা করেন। শেষ পর্যন্ত ৬ উইকেটে ৩০৫ রান করে দলটি। জবাবে ৪৫.৩ ওভারে ২৪৬ রানে অলআউট হয় ইংল্যান্ড।

শুরুতে বার্নসের সঙ্গে ৭৬ রানের উদ্বোধনী জুটিতে অস্ট্রেলিয়াকে ভালো সূচনা এনে দেন ওয়ার্নার। ব্যক্তিগত ৪৪ রানে বার্নস সাজঘরে ফিরলেও পরবর্তীতে স্মিথের সঙ্গে ৫৭ রানের আরেকটি ভালো জুটি উপহার দেন ওয়ার্নার।

অর্ধশতকে পৌঁছানো ওয়ার্নারকে ফিরিয়ে বিপজ্জনক হয়ে উঠা জুটি ভাঙেন রশিদ। তার বলে ওকসের তালুবন্দি হওয়ার আগে ৫৯ রান করেন ওয়ার্নার। ৬৭ বলে তার ৫৯ রানের ইনিংসটি ৬টি চারে সজ্জ্বিত।

দলীয় স্কোরশিটে ১৩৩ রান তুলতে অস্ট্রেলিয়াকে উইকেট খরচ করতে হয়েছে মাত্র একটি। কিন্তু সেখান থেকে আর মাত্র ৬০ রান যোগ করতেই পাঁচটি উইকেট হারিয়ে কিছুটা বিপদে পড়ে সফরকারীরা। এ সময়ে সাজঘরে ফেরেন ওয়ার্নার, স্মিথ (৪৪), জর্জ বেইলি (২৩), ম্যাক্সওয়েল (১৫) ও ওয়াটসন (৬)।

তবে শেষের দিকে অস্ট্রেলিাকে ট্র্যাকে ফিরিয়ে আনেন ওয়েড ও মিচেল মার্শ। তাদের অবিচ্ছিন্ন সপ্তম উইকেটে ১১২ রানের জুটিতে অস্ট্রেলিয়াকে ৩০৫ রানের পুঁজি এনে দেয়। শেষপর্যন্ত ৭১ রানে অপরাজিত থাকেন উইকেটরক্ষক-ব্যাটসম্যান ওয়েড। অন্যদিকে ৪০ রানে অপরাজিত ছিলেন মার্শ। জবাবে ব্যাট করতে নেমে আলেক্স হেলসের (২২) সঙ্গে জ্যাসন রয়ের ৭০ রানের উদ্বোধনী জুটি ইংল্যান্ডকে ভালো সূচনা এনে দেয়। এরপর জেমস টেইলরের সঙ্গে ৪২ রানের আরেকটি ভালো জুটি গড়ে দলকে কক্ষপথেই রাখেন জ্যাসন। গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের শিকারে পরিণত হওয়ার আগে সর্বোচ্চ ৬৭ রান করেন তিনি।

অধিনায়ক মর্গানের সঙ্গে ৪০ রানের জুটিতে দলকে ২ উইকেটে ১৫২ রানের ভাল অবস্থানে নিয়ে যান টেইলর (৪৯)। তবে শেন ওয়াটসনের বলে তিনি আউট হলে ছন্দ হারায় ইংল্যান্ড। এরপর ইংলিশ ব্যাটসম্যানরা সাজঘরে আসা-যাওয়ায় ব্যস্ত থাকায় নিজেদের স্কোরশিটে আড়াইশ’ রানও জমা করতে পারেনি।

মর্গান ব্যক্তিগত ৩৮ রান করে আউট হওয়ার পর দুই অঙ্কেই যেতে পারেননি জস বাটলার (৪) ও ক্রিস ওকস (শূন্য)। এরপর থিতু হওয়ার চেষ্টা করেও নিজেদের ইনিংস বড় করতে পারেননি বেন স্টোকস (১৩), মইন আলি (১৭) ও আদিল রশিদ (১১)।

অস্ট্রেলিয়ার ওয়াটসন, নাথান কোল্টার নাইল, প্যাট কামিন্স ও মিচেল স্টার্ক দুটি করে উইকেট নেন।

ইংল্যান্ডের হয়ে সর্বোচ্চ চারটি উইকেট নেন আদিল রশিদ। একটি উইকেট পান মার্ক উড। ম্যাচ সেরা পারফরম্যান্সের জন্য ম্যান অব দ্য ম্যাচের পুরস্কার জেতেন অস্ট্রেলিয়ার ম্যাথু ওয়েড।