মেইন ম্যেনু

প্রধানমন্ত্রীকে রিকশায় চড়িয়ে চাকরির আশায় টিপু সুলতানও

কিছুদিন আগে গোপালগঞ্জে গিয়ে নাতনীদের সঙ্গে ভ্যানে চড়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই সময় প্রধানমন্ত্রীর ভ্যানে চড়ার ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছিল। গোপালগঞ্জের ভ্যানচালকের প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে সরকারি চাকরিও হয়েছিল। এবার হাওরাঞ্চলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রিকশা ভ্রমণের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। আর তাই নিজের একটা চাকরির আশাও করছেন রিকশাচালক টিপু সুলতান।

বৃহস্পতিবার সকালে অকাল বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করতে হেলিকপ্টারযোগে নেত্রকোনার খালিয়াজুড়ি আসেন প্রাধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

খালিয়াজুড়ি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে থেকে থানা মোড় পর্যন্ত তিন মিনিট নেত্রকোনার সদরের দক্ষিণ-বিশিউড়া গ্রামের মগবুল হোসেনের ছেলে টিপু সুলতানের রিকশায় চড়েন প্রধানমন্ত্রী। হাওরাঞ্চলে শেখ হাসিনার এই রিকশাভ্রমণ বেশ আগ্রহের সঙ্গে অবলোকন করেন হাজার-হাজার নেতাকর্মী ও স্থানীয় হাওরবাসী।

এসময় প্রধানমন্ত্রী রিকশায় বসে হাস্যোজ্জ্বল চোখে চারপাশের হাওরের নৈসর্গিক সৌন্দর্য উপভোগ করেন। এসময় রিকশাচালক টিপু সুলতানকে ৩ হাজার টাকা বকশিশও দেন প্রধানমন্ত্রী। বিষয়টি এখন টক অব দ্যা টাউনে পরিণত হয়েছে। পাশাপাশি হওয়ায়

রিকশাচালক টিপু সুলতান জানান, ৩ মাস বয়সে তার মা মারা গেছে, ৬ ভাই ৪ বোনের সংসার। বাবা কৃষক। তার বাবা নেত্রকোনা সদরের ৮নং দক্ষিণ বিশিউড়া ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের সাবেক সভাপতি ছিলেন। তিনি (টিপু সলতান) ২ বার নৌকায় ভোট দিয়েছেন। কষ্ট করে সংসার চলে।

৮ম শ্রেণি পাশ টিপু সুলতান আরও জানান, যদি তার যোগ্যতা অনুযায়ী তার একটা চাকরি হতো তাহলে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে ভালভাবে বাঁচতে পারতেন। তবে প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে রিকশা চালাতে পেরে তার জীবন ধন্য হয়েছে বলেও জানান তিনি।

নেত্রকোনার জেলা প্রশাসক ড. মুশফিকুর রহমান জানান, রিকশাচালক টিপু সুলতানকে একটি রিকশা দেয়া হবে।






মন্তব্য চালু নেই