মেইন ম্যেনু

প্রধানমন্ত্রীর ওমরাহ পালন

সৌদি আরব পৌঁছে পবিত্র ওমরাহ পালন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওমরাহ শেষে প্রধানমন্ত্রী দুই রাকাত ওয়াজিব নামাজ আদায় করেন এবং দেশ ও জাতির কল্যাণ কামনায় মোনাজাতে অংশ নেন।

মক্কায় প্রধানমন্ত্রী ফজরের নামাজ আদায় করেন। ওমরাহ পালনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন ছোট বোন শেখ রেহানা ও কয়েকজন আত্মীয়। বিকেলে তার জেদ্দায় ফেরার কথা রয়েছে।

শুক্রবার দিবাগত রাত পৌন ১টায় প্রধানমন্ত্রী তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে জেদ্দা থেকে মক্কায় পৌঁছান। হারাম শরিফের পাশে মক্কা গেস্ট প্যালেসে কিছুক্ষণ অবস্থানের পর তিনি সঙ্গীদের নিয়ে হারাম শরিফে যান।

প্রধানমন্ত্রীর সফরসঙ্গীদের মধ্যে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, সৌদিতে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এবং ওআইসিতে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি গোলাম মসীহ্, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব আবুল কালাম আজাদ, পররাষ্ট্রসচিব মো. শহীদুল হক, প্রেস সচিব ইহসানুল করিম, বিশেষ সহকারী আবদুস সোবহান গোলাপ, বেক্সিমকো গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান সালমান এফ রহমান, এফবিসিসিআই সভাপতি আবদুল মাতলুব আহমাদ ওমরাহ পালন করেন।

সৌদি বাদশাহ সালমানের আমন্ত্রণে পাঁচ দিনের সফরে শুক্রবার বিকেলে সৌদি আরবের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়েন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজ আল সৌদ সিংহাসনে আরোহণের পর এটাই বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীর প্রথম সৌদি আরব সফর।

শনিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী জেদ্দায় এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে রিয়াদে বাংলাদেশের চ্যান্সেরি কমপ্লেক্স এবং বাংলাদেশ ভবন নির্মাণের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করতে পারেন।

রোববার জেদ্দা নগরীর আল আন্দালুসে সৌদি বাদশাহর আল সালাম প্রাসাদে প্রধানমন্ত্রী সৌদি বাদশাহর সঙ্গে এক দ্বিপক্ষীয় বৈঠকে মিলিত হবেন। বৈঠকে দ্বিপক্ষীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট সকল বিষয় ছাড়াও আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক বিষয়েও আলোচনা হবে।

সৌদি সরকারের প্রতিরক্ষাবিষয়ক উপমন্ত্রী সালমান বিন সুলতান আল সৌদ এবং সৌদি বাদশাহর রয়্যাল কাউন্সিলের উপদেষ্টা ইয়াসের আল মিয়াসহ বেশ কয়েকজন সৌদি মন্ত্রী এবং সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সফরকালে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রধানমন্ত্রীর দেশে ফেরার কথা রয়েছে।