মেইন ম্যেনু

প্রধানমন্ত্রীর কাছে ঈদ উপহার হিসেবে রাস্তা চায় গণবি শিক্ষার্থীরা

বিধান মুখার্জী, গণ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি : মঙ্গলবার (১৩ জুন) সাভারের ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বাইশ মাইল থেকে শুরু হয়ে নলাম পর্যন্ত সড়কের সংস্কারের দাবিতে মানববন্ধন করেছে গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাধারণ শিক্ষার্থীরা। দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকের সামনে মূল সড়কে প্রায় কয়েক শতাধিক শিক্ষার্থী এসময় মানববন্ধনে অংশ নেয়।

দীর্ঘদিন ধরেই ছোট-বড় অসংখ্য গর্ত আর খানাখন্দে বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে সাভারের গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের (গণবি) যাতায়াতের প্রধান সড়কটি। সামান্য বৃষ্টিতেই এখানে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। সড়কটির বিভিন্ন স্থান যেন পরিণত হয়েছে পুকুরে। প্রতি বছর বর্ষার মৌসুমে সড়কটির এমন বেহাল দশা হলেও এ যেন দেখার কেউ নেই। এ বিষয়ে বারবার পত্র-পত্রিকায় নিউজ প্রকাশিত হলেও ভাঙ্গা ইটের টুকরা ও বালি দিয়ে সংস্কার ছাড়া কোন পদক্ষেপ আজ পর্যন্ত নেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেন শিক্ষার্থীরা।

গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে সড়টি সংস্কার ও ল্যাম্পপোস্ট বসানোর দাবিতে মানববন্ধন করে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সংস্কারের আশ্বাস দিলেও তারা বিষয়টি বিশেষ আমলে নেয় নি। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে জানালে রাস্তাটি সড়ক ও জনপদ বিভাগের আওতাধীন বলে এড়িয়ে যান তারা। পরবর্তীতে গণবির ফার্মেসী বিভাগের সকল শিক্ষার্থীরা আরেকটি মানববন্ধন করে। তবুও কোন প্রকার উন্নতি কিংবা সংস্কারের উদ্যোগ দেখা যায় নি, কেবল মৌখিক আশ্বাস দিয়ে আসছেন কর্তৃপক্ষ, বাস্তবে তা আর প্রয়োগ হয়নি।

সড়ক ও জনপদ বিভাগের আওতাধীন এ রাস্তাটি গত বছর বর্ষা মৌসুমে আংশিক সংস্কার হওয়ার পর আবারও যাতায়াত অনুপযোগী হয়ে পড়েছে। গণ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদের দ্বিতীয় কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠানের সময় অতিথি হিসেবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, ঢাকা-১৯ আসনের সংসদ সদস্য ডা. এনামুর রহমান আসার পূর্বে সড়কটি পুণরায় চলাচলের জন্যে ইট-বালু দিয়ে অস্থায়ী ভাবে সংস্কার করা হয়। গণবির শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাসহ কর্মকর্তা ও কর্মচারীসহ গণস্বাস্থ্য সমাজ ভিত্তিক মেডিকেল কলেজ, গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যালস্, পিএইএ ভবন, গ্লোবাল এটায়ার লিমিটেড নামক গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের এই রাস্তাটি দিয়েই যাতায়াত করতে হয়।

সড়কটিতে এ রকম ছোট-বড় গর্ত থাকার কারণে প্রায় প্রতিদিনই দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরাসহ এলাকাবাসী। সন্ধ্যার পর এই রাস্তায় যাতায়াত একেবারেই অযোগ্য হয়ে পড়ে। সড়কটিতে কোন ল্যাম্পপোস্ট না থাকায় ভোগান্তি বেড়েছে আরও কয়েক গুণ। যে কারণে ঘন ঘন দুর্ঘটনা ঘটছে সড়কটিতে। তাছাড়া প্রয়োজনের তুলনায় রাস্তাটি যথেষ্ট প্রশস্তও নয় বলেও অভিযোগ গণবির শিক্ষার্থীদের।

মঙ্গলবার মানববন্ধনের আহ্বায়ক গণবির আইন বিভাগের শিক্ষার্থী এনায়েত উল্লাহ কৌশিক বলেন, “সড়কটি খুব দ্রুত সম্প্রসারণসহ সংস্কার এবং সড়কের পাশে ল্যাম্পপোস্ট স্থাপন করতে হবে। অতি শীঘ্রই যদি সংস্কারের কাজে হাত দেয়া না হয়, তাহলে আমরা সাধারণ শিক্ষার্থীরা অত্র এলাকার মানুষের সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক অনির্দিষ্টকালের জন্য অবরোধ কর্মসূচী ঘোষণা করব’। এছাড়াও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করে কৌশিক বলেন, ‘ গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা ঈদ উপহার হিসেবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এই রাস্তা চায়। আমি শিক্ষার্থীদের পক্ষে সরকারের কাছে গণ বিশ্ববিদ্যালয়, এবং গণস্বাস্থ্য মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের সত্যিকারের প্রয়োজনে ঈদ উপহার হিসেবে রাস্তা দাবি করছি।

গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসী বিভাগের শিক্ষার্থী রায়হান মল্লিক বলেন, “আগেরবার পিএইচএ ভবনে শিক্ষা মন্ত্রী এসেছিলো দেখে রাস্তা সংস্কার করা হয়। এবার আবার কোন মন্ত্রীর আগমন দরকার, তাছাড়া সাধারন মানুষের জন্য রাস্তা ঠিক করা হয় না, হলেও কয়েকটা ইটের টুকরা ফেলবে,এর বেশী কিছুই না।”

গণ বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়াও এ রাস্তা গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিক্যাল কলেজ, গণস্বাস্থ্য ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি, আলহাজ্ব জাফর ব্যাপারী উচ্চ বিদ্যালয়সহ এই এলাকায় অবস্থিত অন্যান্য শিল্পকারখানাগুলোর মূল এবং একমাত্র সড়ক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। যে কারণে সড়কটি খুব দ্রুত সম্প্রসারণসহ সংস্কার ও ল্যাম্পপোস্ট স্থাপনের দাবি ভুক্তভোগীদের।

এই মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন বৃন্ত, দুর্জয়, কালেরকণ্ঠ শুভ সংঘ গণবি ইউনিট এবং সমকাল সুহৃদ সমাবেশ গণবি ইউনিটের সদস্যরা একাত্মতা পেষণ করেন।






মন্তব্য চালু নেই