মেইন ম্যেনু

প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চাইছে ইসি

জনপ্রতিনিধিদের আচরণবিধি অনুসরণে সরকার প্রধানের হস্তক্ষেপ কামনা করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। সেই সঙ্গে বিএনপি’র নিয়মিত সমালোচনাকে অযথা দোষারোপ বলে মনে করছে।

রোববার রাজধানীর শেরেবাংলানগরস্থ নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে নির্বাচন কমিশনার মো. শাহনেওয়াজ তার নিজ কক্ষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা বলেন।

সরকার দলীয় মন্ত্রী-সাংসদদের আচরণবিধি লঙ্ঘনের বিষয়ে শাহনেওয়াজ বলেন, যারা সরকারের আছেন তারা অন্যদের চেয়ে বেশি দায়িত্বশীল হবেন এটিই আমরা আশা করবো।

নির্বাচিত সরকারের অধীনে ভোট করতে গিয়ে এভাবে আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনায় সরকারের ভাবমূর্তির বিষয়টিও জড়িত বলে উল্লেখ করেন তিনি।

তিনি বলেন, বর্তমানে যারা সরকারে রয়েছে, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি-তাদের অনুরোধ করবো, তারা যেন আমাদের সহযোগিতা করেন। যদিও আমরা নির্বাচন কমিশন আলাদা, তারপরও সরকারের থাকা অবস্থায় নির্বাচন করছি, সরকারের ভাবমূর্তির প্রশ্ন উঠবে।

সরকার প্রধানের কাছেও এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হবে বলে উল্লেখ করেন শাহনেওয়াজ। যিনি সরকার প্রধান আছেন, তাকেও বলবো বিষয়টি (আচরণবিধি অনুসরণে সংশ্লিষ্টদের) দেখার জন্য।

বিএনপি’র অভিযোগের বিষয়ে শাহনেওয়াজ বলেন, আমরা নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করছি, বিভিন্ন সময় নিরপেক্ষতার জন্য চরম চেষ্টা করে যাচ্ছি। এখনও করছি। এরপরও কোনো দল অভিযোগ করলে তাদের ব্যক্তিগত ব্যাপার।

তিনি বলেন, আমাদের দেশে একটা নিয়ম হয়ে গেছে- যারা চাপ সৃষ্টি করতে চায়, তারা অযথা ভাবে নির্বাচন কমিশনকে দোষারোপ করার চেষ্টা করেন। তারা মনে করেন নির্বাচন কমিশন চাপে পড়বে। আমরা বলতে চাই, আমরা কোনো ধরনের চাপ সহ্য করব না। আমরা আমাদের মতোই চলবো।

আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির বিষয়ে শাহনেওয়াজ জানান, আইনশঙ্খলা পরিস্থিতি খারাপ হয়ে গেছে-এমন কোনো কারণ হয়নি। রিটার্নিং কর্মকর্তা যে অনিয়ম দেখেছে এবং তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে। ইতোমধ্যে কিছু বিধিভঙ্গ ইসির ‘অলক্ষ্যে’ ঘটেছে বলে মনে করেন তিনি।

তিনি বলেন, কিছু কিছু লোক আচরণ বিধি লঙ্ঘনের চেষ্টা করছে, আগে সেগুলো লক্ষ্য করা হয়নি; এখন অভিজ্ঞতা ও পরিবেশের কারণেই হোক শক্ত ব্যবস্থা নিতে পিছপা হব না।

কর্মকর্তাদের সতর্ক করে শাহনেওয়াজ বলেন, যারা আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবেন না তাদের বিরেুদ্ধে আমরাই ব্যবস্থা নেব।