মেইন ম্যেনু

প্রস্তাব দেয়ার আগে যা ভাবতে হবে

আপনি কাউকে অল্প সময় বা দীর্ঘ সময় ধরে পছন্দ করেন। একে অপরকে ভালোবাসেন। ভাবছেন ‘ভ্যালেন্টাইন ডে’ তে বিয়ের সিদ্ধান্তটাও নিয়েই ফেলবেন। ‘ভ্যালেন্টাইন ডে’র দিন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই আপনার নিদ্রা উড়ে যাচ্ছে। মনে হচ্ছে বিয়ে করার এখনই সময়। তবে আপনি কীভাবে নিশ্চিত হবেন যাকে বিয়ে করার জন্য সঠিক মানুষটি খুঁজে পেয়েছেন।

আপনি হয়তো কারো সঙ্গে আছেন যার কাছে আপনি আপনার সমস্যাগুলো শেয়ার করতে পারেন। আপনি যে সঠিক মানুষ খুঁজে পেয়েছেন এটি তার অন্যতম একটি লক্ষণ। বিয়ে ও সম্পর্ক নিয়ে স্কটল্যান্ডের এক গবেষণায় এমনই ইঙ্গিত দিয়েছে।

গবেষণায় অংশগ্রহণকারীদের যখন একটি প্রতিশ্রুত সম্পর্কের তিনটি লক্ষণ চিহ্নিত করতে বলা হলো অধিকাংশ সম্পর্কের বিশেষত্ব, বিয়ে এবং সমস্যা শেয়ার করার বিষয়টি উল্লেখ করেছেন। (৫০ শতাংশ তাদের শীর্ষ তিনটি পছন্দ নির্বাচন করেছেন)। এটি বোঝা কোনো কঠিন বিষয় নয়। আমরা অধিকাংশই চাই, দুজন দুজনের হয়ে যাওয়া, যা আমাদের ভালোবাসতে এবং বিশেষ করে ভাবতে সহায়তা করে।

রিলেট ডট অর্গ ডট ইউকের সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ এবং জ্যেষ্ঠ সেক্স থেরাপিস্ট আমান্দা মেজর বিয়ের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়ার আগে কিছু দিক তুলে ধরেছেন।

একজন সঙ্গী সঠিক নাও হতে পারে। একজনের এমন কিছু বৈশিষ্ট্য থাকতে পারে যা সবসময় মানানসই নাও হতে পারে। ভালোবাসার ক্ষেত্রে বিষয়টি অনেকেই মেনে নেন। কিন্তু বিয়ের মতো বড় কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া মানে আপনি সম্পর্কের অনেক গভীরে।

প্রবাদ আছে, আমরা যে কারণে বিয়ে করি আবার একই কারণে সম্পর্ক ছিন্ন করি। সম্পর্ক থেরাপিস্টরা তাদের অভিজ্ঞতায় বলেন, যেসব দম্পতি বিয়ের সিদ্ধান্ত নেয়ার ক্ষেত্রে তাড়াহুড়ো করেছেন তারাই সম্পর্কের টানাপোড়েনে পড়েছেন বেশি। বিয়ের জন্য পরিবার, বন্ধুবান্ধবসহ সবদিক থেকেই চাপ আসতে পারে। তবে এ ক্ষেত্রে নিজের মতামতটাকেই বেশি গুরুত্ব দেয়া উচিত। আপনি এখনই বিয়ে করতে আগ্রহী কি না এর ওপর ভিত্তি করে সিদ্ধান্ত নিন। বিয়ে একটি বড় অঙ্গীকার। আফসোস করার আগে বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করুন।

সম্পর্কে সন্দেহ একটা ভীতিকর ব্যাপার। যদি আপনার মধ্যে সন্দেহ প্রবণতা থেকে থাকে তাহলে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আমলে নেয়া উচিত।

প্রথমত, আপনি কি সঙ্গীর সঙ্গে স্বাভাবিকভাবে কথা বলেন? দুজন কি দুজনকে বুঝতে পারেন? দ্বিতীয়ত, একজন আরেকজনের কতটুকু চাহিদা পূরণ করছেন এই বিষয়টি কি বুঝতে পারেন? তৃতীয়ত, আপনার কি একই মূল্যবোধ আছে? একই টেলিভিশন অনুষ্ঠান পছন্দ করেন কি না-এ রকম ছোট ছোট কোনো বিষয় নিয়ে আমরা কথা বলি না। তবে এটি আপনার জন্য হয়তো গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে। একজন কি সবসময় জয়ী হতে চান? আরেকটি বড় প্রশ্ন হচ্ছে উভয়ই সন্তান নিতে চান কি না।

উপরের বিষয়গুলোতে আপনি যদি একমত হতে পারেন তাহলেই বিয়ের সিদ্ধান্ত নিতে পারেন। সেটা হোক ভ্যালেন্টাইন ডে তে বা অন্য কোনো দিনে।