মেইন ম্যেনু

প্রাচীন থেকে বর্তমান, সুন্দর ঠোঁটের অজানা ১১ কাহিনী

আদর্শ অধর, বা সুন্দর ঠোঁট বলতে কী বোঝায়? এর কোনো ‘একটা জবাব’ দেয়া হয়ত সম্ভব নয়৷ কেননা যুগে যুগে এর সংজ্ঞা পরিবর্তন হয়েছে, বদলেছে সুন্দর ঠোঁটের বর্ণনা৷

প্রাচীন মিশর : প্রাচীন মিশরে ঠোঁটের সৌন্দর্য ছিল একেবারে ভিন্ন৷ পিরামিডের ভেতর পাওয়া খ্রিষ্টপূর্ব ১৪ শতাব্দীর এক মূর্তি দেখে বোঝা যায় যে, তখন চোখ আর নাকের আকার ছিল বড়৷ তবে ঠোঁটের আকার ছিল স্বাভাবিক৷ অর্থাৎ ঠোঁট এমনভাবে আঁকা হতো, যাতে তার দিকে কারো চোখ না যায়৷

গ্রিস : প্রাচীন গ্রিসের এক ভাস্কর্য থেকে বোঝা যায় যে তখন মেয়েদের উপরের ঠোঁট ছিল পাতলা, অথচ নীচের ঠোঁটটা ছিল বর্গাকার৷ এটাকেই তখন ঠোঁটের সৌন্দর্যের প্রতীক মানা হতো৷

ভারত : লক্ষ্মী দেবীর এক মূর্তিতে ঠোঁট খুব সুন্দর করে ফুটিয়ে তোলা হলেও, প্রতিমার প্রধান আকর্ষণ কিন্তু চোখ আর নাক৷ মূর্তির দিকে তাকালে সবার আগে তাই নাক আর চোখের দিকেই চোখ চলে যায়৷

চীন : মিং রাজবংশের নারীদের আত্মনিয়ন্ত্রণের শিক্ষা দেয়া হতো৷ এটা তখনকার চিত্রকলাতেও চোখে পড়ে৷ ঠোঁট বড় হলে মেকআপের আড়ালে ঢেকে ছোট করে ফেলা হতো৷ তবে তখন লাল লিপস্টিকের চলন ছিল খুব বেশি৷

ইটালি : ১৪০০ খ্রিষ্টাব্দের এই পেইন্টিং থেকে দেখা যাচ্ছে যে, তখন মেয়েদের ঠোঁট হতো পাতলা৷ এতটাই পাতলা যে ঠোঁটযুগল চোখেই পড়ত না৷

ইউরোপ : ১৮০০ শতকে এসে পুরু ও মোটা ঠোঁটকে সুন্দর বলার চলন শুরু হলো ইউরোপে৷ কিন্তু এরপর আবারো যুগ পাল্টালো এবং ছোট ঠোঁটকে সুন্দর বলা হতে লাগলো৷ মানুষই বোধ হয় একমাত্র প্রাণী, যে ঠোঁটে ঠোঁট ঠেকিয়ে ‘সম্ভাষণ’ বা চুম্বনেক তার মর্ম-সহ উপলব্ধি করতে পারে৷ আর সেটাই ফুঁটে উঠে ১৯১০ সালে গুস্তাভ ক্লিম্ট-এর বিখ্যাত তেলচিত্র ‘দ্য কিস’-এ৷ এখানে ঠোঁট দু’টি কিছুটা বিস্তৃত এঁকেছিলেন তিনি৷

যুক্তরাষ্ট্র : ১৯৫০-এর দশকে মার্কিন অভিনেত্রী গ্রেস কেলিকে সৌন্দর্যের প্রতীক মনে করা হতো৷ তার ঠোঁট ছিল উপরে পাতলা আর নিচে ভারী৷

১৯৮০ : যুগ বদলানোর সাথে সাথে মুখমণ্ডলের মধ্যে মুখ্য হয়ে উঠল হাসি৷ অথবা উল্টোভাবে বললে ঠোঁটের কদর বেড়ে গেল৷ টিভিতে টুথপেস্টের বিজ্ঞাপন থেকে শুরু করে সিনেমায় অভিনেত্রীর দাঁত বের করে হাসতে দেখা যেতে লাগল৷

১৯৯০ : বড় হাসি, দেখতে ভালোবাসি৷ ১৯৯০-এর দশকে জুলিয়া রবার্টসের এই হাসি দেখে পাগল হয়নি এমন কম তরুণই আছেন৷ তাই জুলিয়া রবার্টসের মতো ঠোঁটের নারীদের তখন সৌন্দর্যের প্রতীক বলে মনে করা হতো৷

একবিংশ শতাব্দী : এই শতাব্দীর অন্যতম রূপসী নারী বলা হয় বলিউডের ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চনকে৷ যার বিস্তৃত হাসি আর ভারী ঠোঁটের দমকে পাগল বিশ্ববাসী৷

বর্তমান প্রজন্ম : কিম কার্দেশিয়ানের রূপের চর্চা বিশ্বব্যাপী৷ তার ঠোঁটের এই ধরন এখন বর্তমান প্রজন্মের কাছে ভীষণ জনপ্রিয়৷ ইন্সটাগ্রামে তার ভক্তের সংখ্যা ছ’কোটির মতো৷ সেখানে মূলত সেলফি পোস্ট করেই এত ভক্তকে সন্তুষ্ট রেখেছেন তিনি৷ কিশোরী থেকে তরুণী – সকলেই এখন মেকআপ বা প্লাস্টিক সার্জারির মাধ্যমে নিজেদের ঠোঁটকে ঠিক এমনটি করে নিতে ব্যস্ত৷-ডিডব্লিউ