মেইন ম্যেনু

প্রাণনাশের হুমকি পেয়েছেন যে পাকিস্তানী অভিনেত্রীরা!

জীবনে তার অনেক স্বপ্নই অধরা থেকে গিয়েছিল৷ মাত্র ১৭ বছর বয়সেই বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন৷ লেখাপড়া করার ইচ্ছে ছিল, কিন্তু সেই কথা কানে নেননি কেউই৷ অবশেষে নিজের স্বাধীনতার পথ নিজেই খুঁজে নিয়েছিলেন কান্দিল বালোচ৷ একের পর এক সাহসী ও গ্ল্যামারাস পদক্ষেপ নিয়ে একপ্রকার মেয়েদের স্বাধীনতার জন্য জেহাদ ঘোষণা করে দিয়েছিলেন তিনি৷

পাকিস্তানি সমাজের যে পুরুষতন্ত্র মেয়েদের ভবিষ্যতেও বোরখার আড়ালে বন্দি রাখতে আগ্রহী, সেখানে কিনা মেয়ে বিকিনি পরে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে ভিডিও আপলোড করেছেন! বলা বাহুল্য তার এই ‘ ঔদ্ধত্য’ সহ্য করতে পারেনি সমাজ৷ পাকিস্তানের সম্মান নষ্ট করছিলেন তিনি, মহিলাদের দিচ্ছিলেন বদবুদ্ধি – এই অভিযোগেই নিজের ভাইয়ের হাতেই খুন হতে হল কান্দিলকে৷ দেশ ও পরিবারের সম্মান বাঁচাতেই নাকি এই খুন৷ আর এই ‘অনার কিলিং’-এর পরেও বিশেষ অনুশোচনা নেই ভাইয়ের৷

তবে শুধুই কি একা কান্দিল? পাকিস্তানের একাধিক অভিনেত্রী নিজেদের পেশার জন্য একাধিকবার প্রাণনাশের হুমকি পেয়েছেন৷ অনস্ক্রিন খোলামেলা পোশাক পরার জন্য কিংবা সহ-অভিনেতার সঙ্গে অভিনয়ের খাতিরে ঘনিষ্ঠ হওয়ার জন্য একাধিকবার এদের বিরুদ্ধে দেশে ফতোয়া জারি

হয়েছে৷ খুনের হুমকি দেওয়া হয়েছে৷ কারা এই অভিনেত্রী?
বীনা মালিক: পাকিস্তানের এই মডেল ও অভিনেত্রী বরাবরই নিজের সাহসী অবতারের জন্য পরিচিত৷ খোলামেলা পোশাক এবং অনস্ক্রিন ঘনিষ্ঠতার জন্য তাকে জঙ্গিগোষ্ঠী লস্কর-ই-তৈবা খুনের হুমকি দিয়েছিল৷ তিনি পাকিস্তানের মহিলাদের ক্ষতি করছেন, এই অভিযোগ উঠেছিল তার বিরুদ্ধে৷

আরশি খান: ক্রিকেটার শাহিদ আফ্রিদির সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপনের প্রস্তাব দিয়েছিলেন এই সাহসী পাক-মডেল আরশি খান৷ এরপর থেকেই তাকে ঘিরে বিতর্ক শুরু হয়৷ প্রকাশ্যে এই সম্পর্ক নিয়ে নিজের মনের কথা বলার অপরাধে তাকে খুনের হুমকি দেওয়া হয়েছিল৷

মীরা: ‘নজর’ বলে একটি ছবিতে অস্মিত প্যাটেলের বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন এই অভিনেত্রী৷ অনস্ক্রিন চুম্বনের দৃশ্যে তাকে দেখা যাওয়ার অপরাধে তার বিরুদ্ধে পাকিস্তানে ফতোয়া জারি হয়েছিল৷ আর তারপর থেকেই ক্রমাগত খুনের হুমকি পাচ্ছিলেন অভিনেত্রী, এমনটাই জানিয়েছেন তিনি৷

হুমাইমা মালিক: ইমরান হাশমির বিপরীতে অভিনয় করেছিলেন এই পাক অভিনেত্রী৷ ছবিতে ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করার অপরাধে তার বিরুদ্ধেও ফতোয়া জারি হয়েছিল৷ পেশার জন্য নিজের দেশে রীতিমতো বিক্ষোভের মুখে পড়েছিলেন তিনি৷