মেইন ম্যেনু

প্রাণভিক্ষার বিষয়ে সিদ্ধান্ত ঝুলিয়েই রাখলেন মীর কাসেম

রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত ঝুলিয়ে রেখেছেন মানবতাবিরোধী অপরাধে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলী। বেলা ১১টার পর গাজীপুরের কাশিমপুর কারা কর্তৃপক্ষ এই জামায়াত নেতার কাছে সিদ্ধান্ত জানতে চাইলে তিনি আরও সময় চেয়েছেন।

কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২-এর জেল সুপার প্রশান্ত কুমার বণিক বৃহস্পতিবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। মীর কাসেম কারাগার-২-এ বন্দি আছেন।

তবে এই সময় কতটা সে ব্যাপারে নিশ্চিত কিছু জানাতে পারেননি জেল সুপার। তিনি জানান, কতটুকু সময় দেওয়া হবে তা সরকার ও কারা বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেবে।

এর আগে বুধবার রাতে কারা মহাপরিদর্শক সৈয়দ ইফতেখার উদ্দিন কারাগার পরিদর্শন করেন। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের জানান, মীর কাসেম আলী রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার জন্য যৌক্তিক সময় পাবেন।

যৌক্তিক সময় কতটুকু- এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা নির্ভর করবে উনি যখন যে উত্তর দিচ্ছেন, সেটার ওপর।’

বুধবার বিকেলে মীর কাসেম আলীর স্ত্রী খন্দকার আয়েশা খাতুন সাংবাদিকদের জানান, তার স্বামী রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার সিদ্ধান্তের জন্য ছেলে ব্যারিস্টার মীর আহমেদ বিন কাসেমের জন্য অপেক্ষা করছেন। তার ছেলে ২২ দিন ধরে নিখোঁজ রয়েছে।

মঙ্গলবার রাত ১২টা ৪৮ মিনিটে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মীর কাসেম আলীর রিভিউ খারিজ সংক্রান্ত রায়ের কপি গাজীপুরে কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২-এ পৌঁছায়। বুধবার সকাল সাড়ে ৭টায় মীর কাসেম আলীকে তা পড়ে শোনানো হয়।