মেইন ম্যেনু

প্রাথমিক চিকিৎসার কিছু জরুরী টিপস

যখন কেউ আঘাত পায় বা হঠাৎ অসুস্থ হয় তখনই চিকিৎসার প্রয়োজন হয়। সাধারণত চিকিৎসা পাওয়ার আগে কিছুটা সংকটপূর্ণ সময় যায় এবং এটাই সেই সময়, যা রোগীর জন্য সবচেইতে গুরুতপুর্ণ। এই সংকটময় সময়ে যে জিনিসটির সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন তা হলো প্রাথমিক চিকিৎসা। প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার সময় যে সমস্ত বিষয় খেয়াল রাখা উচিত তার কিছু টিপস জেনে নিন।

আপনার বাড়িতে প্রাথমিক চিকিৎসা সরঞ্জাম রাখার সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে নিন। তাতে মূল ঔষধপত্র থাকা উচিত যা সহজেই পাওয়া যায়। আপনার প্রাথমিক চিকিৎসা সরঞ্জাম-বাক্স, বিনা প্রেসক্রিপশনে পাওয়া এমন সহ সবধরনের ঔষুধ বাচ্চাদের নাগালের বাইরে রাখুন।

কোন রোগীকে সাহায্য করার আগে নিজেকে সুরক্ষিত করুন। পরিস্থিতির মূল্যায়ন করুন এবং শরীর থেকে নিষ্কৃত তরল পদার্থ থেকে রক্ষার্থে দস্তানা ব্যবহার করুন কোন জরুরী অবস্থা দেখা দিলে লক্ষ্য রাখুন যেন জিভটা মুখে হাওয়া ঢোকার রাস্তা বন্ধ না করে এবং মুখে কন ক্ষরণ না হয় বা বাইরের জিনিস মুখের মধ্যে না থাকে।

হার্ট সংক্রান্ত রোগীদের ক্ষেত্রে হঠাৎ হার্ট এ্যাটাকজনিত ঘটনা ঘটলে এক্ষেত্রে আক্রান্ত ব্যক্তির বিনাবাধায় নিঃশ্বাস নিতে পারা জরুরী। অন্যথায় কৃত্রিম শ্বাস প্রশ্বাস দেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।

রক্তক্ষরণের সম্ভাবনা পরীক্ষা করার সময় নাড়ীস্পন্দন এবং রক্তসঞ্চালন ঠিক আছে কিনা দেখুন। আক্রান্ত ব্যক্তির যদি বেশিরকম রক্তক্ষরণ হতে থাকে, যদি বিষ খেয়ে থাকে বা শ্বাস-প্রশ্বাস থেমে গিয়ে থাকে তাহলে খুব দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে। মনে রাখতে হবে এক্ষেত্রে প্রতিটি মিহূর্ত জরুরী। প্রয়োজনে সিপিআর ব্যবস্থা নিতে হবে।

ঘাড় বা পিছনে বেশ আঘাতপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে নাড়াচাড়া না করাই ভালো। যদি সে বমি করতে থাকে এবং ঘাড় না ভেঙে থাকে, তবে তাকে পাশে ফিরিয়ে শোয়াতে হবে যাতে দম বন্ধ না হয় এবং কম্বল বা কোট দিয়ে ঢেকে গরম রাখতে হবে।

যতক্ষণ আপনি প্রাথমিক চিকিৎসা দিচ্ছেন, ততক্ষণ অন্য কাউকে দিয়ে ডাক্তার ডাকান। যে ডাক্তার ডাকবে, ডাক্তারকে জরুরী অবস্থার ধরণ জানাবে এবং এ্যাম্বুলেস্ন না আসা পর্যন্ত কি করনীয় উপদেশ নেবে।

নিজে শান্ত থাকবেন এবং রোগীকে মানসিক সহায়তা দেবেন।

অজ্ঞান বা অল্পজ্ঞানসম্পন্ন কোন ব্যক্তিকে কখনই তরল খেতে দেবেন না। তরল পানীয় তার বায়ুনালীতে ঢুকে শ্বাসরুদ্ধ করতে পারে। অজ্ঞান ব্যক্তিকে চাপড়ে বা ধাক্কা মেরে জাগাবেন না। আক্রান্ত ব্যক্তির কোন ওষুধ এ্যালার্জী আছে কিনা, বা বিশেষ সাবধানতা প্রয়োজন এমন কনো শারীরিক অবস্থা আছে কিনা জানার জন্য জরুরী চিকিৎসা সম্বন্ধীয় সনাক্তকরণ কার্ড-এর খোঁজ নিন।

প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়ার সময় একটা বিষয় মনে রাখতে হবে আপনি চিকিৎসক নন। আপনার দায়িত্ব হলো রোগিকে কিছুটা সাপোর্ট দেয়া। এক্ষেত্রে ভালোভাবে না জানা থাকলে আগ বাড়িয়ে কিছু করতে যাবেননা এতে হিতে বিপরীত হতে পারে।