মেইন ম্যেনু

প্রার্থনা একটাই- সুস্থ হয়ে ফিরে আসুন দিতি

বাংলা ছবির গুণী অভিনেত্রী দিতি। সু-অভিনয় দিয়ে দর্শকের হৃদয় জয় করে নেওয়া এই অভিনেত্রী এখন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন। তাঁর সুস্থতা কামনা করলেন তারকারা। গত ২৯ জুলাই চেন্নাইয়ে মাদ্রাজ ইনস্টিটিউট অব অর্থোপেডিকস অ্যান্ড ট্রমাটোলজিতে (এমআইওটি) দিতির মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার করা হয়। তবে এর আগে ঢাকায় অসুস্থ হয়ে পড়েন দিতি। তখন তাঁর মস্তিষ্কে টিউমার ধরা পড়ে। এরপর কিছুটা সুস্থ হয়ে আবার ঢাকায় ফেরার পর আবার তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। এরপর পুনরায় আবার তাঁকে এমআইওটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। গত কয়েকদিন ধরেই বিভিন্ন মাধ্যমে জানা যাচ্ছিল দিতির শারীরিক অবস্থা দিনে দিনে খারাপ হয়ে পড়ছে।

গতকাল দিতির মেয়ে লামিয়া চৌধুরী সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে লিখেছেন, ‘মস্তিষ্কে থাকা টিউমারের কারণে আমার আম্মুর দেহে যে তেজষ্ক্রিয় রশ্মি প্রয়োগ করা হচ্ছে, তাতে তার অবস্থা আরও খারাপের দিকে যাচ্ছে।’ তার অসুস্থতা ভক্ত শ্রোতা ও দর্শকদের মনে বেদনা সঞ্চারিত করেছে। দেশব্যাপী সবাই তার জন্যে প্রার্থনা করছেন, তিনি দ্রুত সুস্থ হয়ে ফিরে আসুন। দিতির এ অসুস্থতার কারণে শোবিজ অঙ্গনেও থমথমে অবস্থা বিরাজমান। চলছে তার জন্য প্রার্থনা। চাওয়া একটাই- ‘দিতি সুস্থ হয়ে ফিরে আসুন আমাদের মাঝে’।

কবরী

গতকাল আমি যখন শুনলাম দিতির শারীরিক অবস্থা খুবই খারাপ। তখন থেকেই আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করছি ও যেন দ্রুত সুস্থ হয়ে যায়। এরপর আমি যখন আরও কয়েকজনের সাথে বিষয়টি নিয়ে কথা বললাম- তখন বিষয়টি শুনে আমার মনে হয়েছে স্রষ্টাই পারে দিতিকে সুস্থ সবলভাবে বাঁচিয়ে রাখতে। সবাই আমাদের প্রিয় দিতির জন্য দোয়া করবেন।

ইলিয়াস কাঞ্চন

আমি কাল যখন খবরটি শুনলাম, তখন কিছুটা সময়ের জন্য থমকে গিয়েছিলাম। দিতির অভিনেত্রী হিসেবে যে সুনাম বা দর্শকপ্রিয়তা রয়েছে, সেটি এ সময়ের কয়জন অভিনেত্রীর রয়েছে? আমি স্রষ্টার কাছে চাইবো, যে কোনভাবে এমনকি মিরাকলভাবে হলেও দিতি যেন আগের মত সুস্থ হয়ে উঠে।

মিশা সওদাগর
আমার প্রিয় অভিনেত্রীদের মধ্যে দিতি একজন। আমি স্রষ্টার কাছে শুধু বলবো দিতির জন্য যেটা মঙ্গলকর স্রষ্টা যেন সেটিই করেন।

ওমর সানি
দিতির সাথে আমার কখনোই কাজ করা হয়নি। যদিও আমরা সমসাময়িক ছিলাম। তাঁর সাথে অভিনয়ের বিষয়টি আমি অনেক মিস করি। যদি একজন মানুষ হিসেবে বলা হয় দিতি কেমন? আমি বলবো অসাধারণ। আর শিল্পী হিসেবে কেমন তা তো সবারই জানা। আমার বাচ্চাদের দিতি অনেক টেক কেয়ার করত। একবার মৌসুমী লন্ডনে ছিলো। তখন আমার বাচ্চাদের এমনভাবে টেক কেয়ার করছে তা আমার বলার কোন ভাষা নেই। তাঁর ব্যক্তিত্ব। এককথায় চমৎকার। আজকে লামিয়ার যে জায়গাটায় একদিন আমিও একদিন এ জায়গাটায় ছিলাম। আমার মা যখন ক্যান্সার আক্রান্ত। তখনি আমি একদিন বলতে বাধ্য হয়েছিলাম। আল্লাহ আমার মাকে যেন তার কাছে নিয়ে যায়। আর কষ্ট সহ্য করতে পারছি না।

ফেরদৌস
দিতি আপু আমার অনেক পছন্দ ও ভালোবাসার একজন মানুষ। ভীষণভাবে মন থেকে সৃষ্টিকর্তার কাছে প্রার্থনা করছি। আল্লাহ যেন মিরাকলি হলেও তাঁকে সুস্থ করে দেন। তিনি একজন ভাল নায়িকা কিংবা অভিনেত্রী নন, তিনি ভাল একজন মানুষ। আমার চলচ্চিত্রের ক্যারিয়ারে যে কয়েকজন ভাল মানুষের সান্নিধ্য পেয়েছিলাম তার মধ্যে তিনি একজন। যদিও তাঁর সঙ্গে আমার কাজ কম হয়েছে। বাংলাদেশের প্রত্যেকটা মানুষ যেন তার জন্যে দোয়া করে।

আরিফিন শুভ
দিতি আপু আমাকে এত স্নেহ করতেন যা বলে বোঝাতে পারব না। আমি কোনভাবেই বিষয়টি মেনে নিতে পারছি না। আমি তাঁকে অনেক শ্রদ্ধা করি ও ভালোবাসি। আর কি বলার আছে বলেন? তিনি আমাদেরকে ছেড়ে চলে যেতে পারেন না। আপনারা সবাই দিতি আপুর জন্য দোয়া করবেন।