মেইন ম্যেনু

‘প্রার্থীকে মেরে ভুট্টাখেতে ফেলা রাখা হয়েছে’

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দখলের মহোৎসব চলছে বলে অভিযোগ করেছেন, বাংলাদেশের ওয়ার্কাস পার্টির সভাপতি ও বেসামরিক বিমান ও পযটন মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন।

রোববার বিকালে নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকীবউদ্দিন আহমদের সঙ্গে সাক্ষাত করেন তিনি।

সাক্ষাত শেষে সাংবাদিকদের তিনি বলেন, এই নির্বাচনকে আমরা গুরুত্ব সহকারে নিয়েছি। এ কারণে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছি। কিন্তু এই নির্বাচন নিয়ে আমাদের আভিজ্ঞতা খুবই করুণ। এ কারণে আজকে তৃতীয় বাবের মতো ইসিতে এসে কথা বলছি। দ্বিতীয় দফা নির্বাচন দেখে আমাদের মনে হয়েছে দখলের মহোৎসব চলছে।

রাশেদ খান মেনন বলেন, সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে যেখানে আমাদের প্রার্থীকে বাধা দেওয়া হচ্ছে, এখন প্রার্থীকে মেরে ভুট্টা খেতে ফেলে রেখেছে। কেন্দ্র দখলের ঘটনা চোখের সামনে হচ্ছে। আমরা এ ব্যাপারে ইসিকে চিঠি দিয়েছি। আমরা নির্বাচনের শেষ দেখতে চাই। কিন্তু আমাদেরকে যদি আপনারা আশ্বস্ত করতে না পারেন, তাহলে এই নির্বাচন কমিশনের ওপর মানুষের আর কোনো আস্থা থাকবে না। সিইসি আমাদের বলেছেন, আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর সঙ্গে আবার কথা বলবেন।

নির্বাচনে বিনিময় বাণিজ্য হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, এবারের নির্বাচনে বিনিময় বানিজ্য হচ্ছে এখানে টিকে থাকা কষ্টকর। আমরা আশা করবো, শেষ পযন্ত তাদের যে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে সেটা প্রয়োগ করবেন।

যেমন অনিয়মের কারণে খাগড়াছড়ি রাঙ্গামাটিতে নির্বাচন বাতিল করেছে, কিন্তু বাগেরহাটের নির্বাচন তো বাতিল করে নাই। সেখানে তো বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছে। বাগেরহাটে আমাদের প্রার্থীকে মনোনয়ন জমা দিতে বাধা দেওয়া হয়েছে। সবার জন্য সমান এ্যাকশন নেয়ার আহবান জানান তিনি।

সিইসির পদত্যাগ চাইবেন কি না?-এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, পদত্যাগ দাবির পক্ষে আমরা না। আমাদের কথা হচ্ছে, নির্বাচন কমিশন থাকবে, আসবে। আজকে হোক কালকে হোক নির্বাচন কমিশনকে সঠিকভাবে দায়িত্ব নিয়ে কাজ করতে হবে।

রাশেদ খান মেনন বলেন, এই নির্বাচন আমাদের বহু সংগ্রাম লড়াইয়ের ফল। এরশাদের আমলে, জিয়ার আমলে খালেদা জিয়ার আমলে আমরা নির্বাচন ব্যবস্থা আনার জন্য লড়াই করেছি। দরকার হলে আমরা নির্বাচন ব্যবস্থাকে রক্ষার জন্য আবার লড়াইয়ে নামবো। এসময় দলটির সাধারণ সম্পাদক ফজলে হাসান বাদশা তার সঙ্গে ছিলেন।