মেইন ম্যেনু

প্রায় ৩৫০০ বছর আগে সুনামিতে ভেসে গিয়েছিল পৃথিবীর ‘প্রথম শহর’!

কুমিরের সঙ্গে লড়াই করেও মহেঞ্জোদাড়োকে বক্স অফিসে বাঁচাতে পারেননি হৃত্বিক রোশন| বাস্তবের মহেঞ্জোদাড়োকে কেন বাঁচানো যায়নি সে নিয়ে এখনো নিশ্চিত নন ঐতিহাসিক গবেষকরা| তবে একটি কারণ যে সুনামি‚ সে নিয়ে দ্বিমত নেই| ঐতিহাসিকদের দাবি‚ গুজরাটের ঢোলাভিরায় এমন প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শন পাওয়া গেছে যা থেকে বলা যায়‚ সেখানে মানুষের হাতে সম্ভবত গড়ে উঠেছিল প্রথম শহুরে সভ্যতা|

গুজরাটের কচ্ছের রণ-এর জনপদ ঢোলাভিরা| ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ওশনোগ্রাফির গবেষকরা মনে করেন‚ আজ থেকে অন্তত পাঁচ হাজার বছর আগে এখানে মানুষের হাতে তৈরি হয়েছিল আস্ত শহর এবং এটি ছিল হরপ্পা সভ্যতার বৃহত্তম বন্দর শহর| এখান থেকেই জলপথে সুমেরীয়দের সঙ্গে বাণিজ্য চালাত হরপ্পাবাসীরা| বর্তমান ভারতে হরপ্পা সভ্যতার যে কটি নিদর্শন আছে তার মধ্যে ঢোলাভিরা অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ|
খননকার্যে যে নিদর্শন পাওয়া গেছে তা থেকে বোঝা যায় তিনটি ধাপে গড়ে উঠেছিল জনপদ| একদম উপরের ধাপে আছে কেল্লা| যেখান থেকে নগর এবং তার বাইরে নজরদারি চালানো হত বলে অনুমান করা হয়| তারপর আছে দ্বিতীয় ধাপ এবং একদম নিম্ন অববাহিকায় তৃতীয় ধাপ| শহর ঘিরে ছিল ১৪ থেকে ১৮ মিটার পুরু প্রাচীর| বহিরাগত শত্রু এবং সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাসের হাত থেকে বাঁচবার জন্য নির্মিত হয়েছিল হরপ্পাবাসীর হাতে|

মেরিন আর্কিওলজিস্ট বা সামুদ্রিক প্রত্নতাত্ত্বিকরা মনে করেন‚ ঢোলাভিরা ভেসে গিয়েছিল সুনামির সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাসে| আজ থেকে প্রায় ৩৫০০ বছর আগে সুনামির রাক্ষুসে ঢেউ এসে প্রাচীর ধূলিসাৎ করে ভাসিয়ে নিয়ে গিয়েছিল ঢোলাভিরাকে| পৃথিবীর প্রথম নগরকে|-বাংলা.কম