মেইন ম্যেনু

“প্রিয় বোন তোমার শরীরটা প্রেমিকের খাবারে পরিণত করোনা”

বোন, জানি আমার কথাগুলো খারাপ লাগবে। এরপরও বলছি তুমি ভালোবাসা দিবস উদযাপন কর। কিন্তু নিজের শরীরটা প্রেমিকের খাবারে পরিণত করোনা। আধুনিকতার নামে নেশাগ্রস্ত হয়ে পড়িয়োনা। এতে সাময়িক আনন্দ পাওয়া যায় বটে কিন্তু সে আনন্দ তোমাকে সারা জীবন কষ্ট দিবে। তোমাকে একাধিকবার ভোগ করে তোমার রূপ যৌবন ধ্বংস করে সে যখন তোমার প্রতি মোহ হারিয়ে অন্য একটি মেয়ের সাথে জড়িয়ে যাবে তখন কি করবা? প্রেম কর কোন আপত্তি নেই কিন্তু নিজেকে সস্তা বানিয়ো না। আজ যে ইয়াবা সিসা তোমাকে ভোগ করার জন্য টাকা খরচ করে কিনে দিচ্ছে কাল তোমার প্রতি মোহ হারিয়ে ফেলার পর সে যদি তার মোবাইল অফ করে অন্য মেয়ে নিয়ে ফুর্তি করে তখন কি করবা? সে তোমাকে সারা জীবন সিসা, ইয়াবা, মদ কেনার টাকা দিবে তার নিশ্চয়তা কি? তখন তুমিও কি অন্য ছেলের সাথে নিজেকে জড়াবে নতুন করে? না বোন, তোমার সে সুযোগ নেই। তোমার সেই অমূল্য সম্পদটি যে ইতোমধ্যে আগের জন পুরোটাই ভোগ করেছে। তখন নেশার টাকা জোগাড় করতে হয় তোমাকে ঐশী হতে হবে অথবা আদৃতা হতে হবে। মনে পড়ে আদৃতার কথা?

সারাদিন ফ্যাশান শো আর ফটো শুট করে যা টাকা ইনকাম করতো তা দিয়ে নেশা করত আদৃতা। একদিন সে নেশাই তাকে হত্যা করে। সে না হয় মডেল ছিল। টাকা জোগাড় করতে পারতো। কিন্তু তুমি কি করবা? একবার ঠাণ্ডা মাথায় আমার কথা গুলো ভেবো। তারপর সিদ্ধান্ত নিও নেক্সট ভ্যালেন্টাইন’স ডে তে তুমি কি করবে আর তোমার কি করা উচিত। (আবু রায়হান মিকাঈল)