মেইন ম্যেনু

প্রেমিকাকে হাতের মুঠোয় রাখতে চান? কীভাবে জেনে নিন…

একের পর এক প্রেম করছেন। একটার পর একটা করে গার্লফ্রেন্ড-ও জুটে যাচ্ছে। কিন্তু শেষমেষ কেউ-ই আর থাকছে না! বেলাশেষে আপনি একাই রয়ে যাচ্ছেন? তারমানে আপনি আপনার গার্লফ্রেন্ডকে ধরে রাখতে পারছেন না?

পুরনো হোক বা নতুন, গার্লফ্রেন্ডকে বশে রাখতে হয়। না-হলেই তারা সাপের পাঁচ পা দেখে। প্রথমত, মেয়ে হওয়ার সুবাদে সব কিছুতেই অগ্রাধিকার নেওয়ার একটা চেষ্টা থাকে। তার উপরে যখন-তখন ফাঁসিয়ে দিতে জুড়ি নেই। যদি এই হয় অবস্থা, তবে কি করে গার্লফ্রেন্ডকে ধরে রাখবেন?

প্রশ্নটা ঠিক এখানেই। তাহলে আসুন আপনাকে জানিয়ে দিই কি করে হাতের মুঠোয় রাখবেন গার্লফ্রেন্ডকে? এর জন্য রইল ১০টি টিপ্‌স—

১। ফোন আপনি করবেন না। তাকে করতে দিন। মনে রাখবেন মেয়ে বলেই তাকে বেশি তোল্লাই দেওয়ার কোনও দরকার নেই।

২। উইকএন্ড হলেই গার্লফ্রেন্ডকে নিয়ে বেরিয়ে পড়বেন না। নিজের বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়-পরিজনদের সঙ্গেও প্ল্যান করুন এবং প্রেমিকাকে বুঝিয়ে দিন সব সময় তাকে চোখে হারান না আপনি।

৩। গার্লফ্রেন্ড যদি ফেসবুকে স্টেটাস কমিটেড বা এনগেজ্‌ড না করে তবে আপনিও নিজের স্টেটাস সিঙ্গল করে দিন। এর পরে সে কিছু বলতে এলে তাকে বলুন আগে যেন সে ফেসবুকে নিজের রিলেশনশিপ স্টেটাসে ঘোষণা করে কার সঙ্গে তার এনগেজমেন্ট।

৪। গার্লফ্রেন্ডের মেল আইডি এবং ফেসবুকের পাসওয়ার্ড জানতে চান। সত্যি সত্যি নেবেন না। কিন্তু চাইলে সে এক কথায় পাসওয়ার্ড জানাচ্ছে কি না খেয়াল করুন। না দিলে পাল্টা চাপ দিন এই বলে যে, তবে নিশ্চয়ই এমন কিছু ব্যাপার রয়েছে যা সে গোপন করতে চাইছে।

৫। ফাঁকা বাড়িতে গার্লফ্রেন্ড ডাকলে যাবেন না। আপনার জন্য তার চাহিদা বাড়তে দিন। শপিং মলে যান, সিনেমা দেখুন কিন্তু গোপন অভিসার যতটা পারেন এড়িয়ে চলুন।

৬। গার্লফ্রেন্ডদের বান্ধবীদের সঙ্গে ফেসবুক বা হোয়াট্‌সঅ্যাপ মারফত নিয়মিত যোগাযোগ রাখুন। তাদের প্রশংসা করুন। তবে তাদের সঙ্গে গার্লফ্রেন্ড নিয়ে কোনও কথা বলবেন না। তারা নিজে থেকে কিছু বলতে এলে চুপচাপ শুনে নিন। মন্তব্য করবেন না। এতে বান্ধবী হিংসেয় জ্বলবে এবং আপনার দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা করবে।

৭। বান্ধবীকে মাঝেমধ্যেই কথায় ও কাজে বুঝিয়ে দিন যে সে কতটা ক্যাবলা এবং আপনাকে ছাড়া সে কতটা অসহায়।

৮। বান্ধবীর বাবা-মা ও পরিবারের সকলের সঙ্গে খুব ভাল সম্পর্ক গড়ে তুলুন। বান্ধবী বাড়িতে যখন নেই, তখন বিশেষ করে তার বাড়িতে যান, বাড়ির সকলের সঙ্গে জমিয়ে গল্প করুন। টুকটাক কাজও করে দিন। বাড়ির সকলের চোখে আদর্শ ছেলে হয়ে উঠুন।

৯। সারা রাত জেগে গল্প করবেন না। নিজের শরীর এবং ঘুম কম্প্রোমাইজ করে প্রেম যে আপনি করবেন না, একথা ভাল করে তাকে বুঝিয়ে দিন।

১০। অফিসে বা কাজে থাকলে বান্ধবীর ফোন ধরবেন না। এমার্জেন্সি ছাড়া মেসেজেরও উত্তর দেবেন না। কিন্তু গার্লফ্রেন্ড যদি তার অফিস বা কাজের জায়গায় আপনার ফোন না তোলে তবে তুলকালাম করবেন। কারণ? কারণ মেয়েদের অনেক রকম বিপদ হতে পারে। সেই আশঙ্কাতেই আপনি ফোন না তুললে রেগে আগুন হয়ে যান। এটাই তাকে বলবেন।