মেইন ম্যেনু

প্রেসক্লাবের সামনে নার্সদের সড়ক অবরোধ

রাজধানীতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের সড়কের একপাশ অবরোধ করে আন্দোলন করছে বাংলাদেশ ডিপ্লোমা বেকার নার্সেস অ্যাসোসিয়েশনের ও বাংলাদেশ বেসিক গ্র্যাজুয়েট নার্সেস সোসাইটির (বিজিএনএস) নেতা-কর্মীরা। ফলে ওই পাশ দিয়ে যান চলাচল বন্ধ হয়ে আশপাশের এলাকায় তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়েছে।

রোববার সকালে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশ শেষে দুপুর ১টায় তারা জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আসেন এবং রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন।

দাবি আদায়ে আজ আবারো স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে যাবেন বেকার নার্সদের ১০ সদস্যের প্রতিনিধি দল।

বাংলাদেশে ডিপ্লোমা বেকার নার্সেস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি রিনা আক্তার বলেন, ‘এর আগে জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে নার্স নিয়োগ করা হলেও এখন তারা পরীক্ষার মাধ্যমের নিয়োগের জন্য বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে। তারই প্রতিবাদে আমরা কর্মসূচি পালন করে আসছি।’

বাংলাদেশে ডিপ্লোমা বেকার নার্সেস অ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব ফারুখ হোসেন বলেন, ‘পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়োগ প্রক্রিয়া চালু করার মানে হচ্ছে মোটা ঘুষ বাণিজ্য করা। ঘুষ বাণিজ্যের জন্যই তিন হাজার ৬১৬ সিনিয়র স্টাফ নার্স পদে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে।’

বাংলাদেশ বেসিক গ্র্যাজুয়েট নার্সেস সোসাইটির (বিজিএনএস) সভাপতি রাজীব কুমার বিশ্বাস জানান, এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি বাতিল ও আগের মতো জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে নার্স নিয়োগ দেওয়ার ও বয়স ৩৬ বছরে উন্নীত করাসহ বিভিন্ন দাবিতে তারা কর্মসূচি পালন করে আসছেন।

গতকাল শনিবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত রাজধানীর আগারগাঁওয়ে সেবা পরিদপ্তর (ডিএনএস) ভবন ঘেরাও করে রাখেন বেকার নার্সরা। সকাল থেকে ওই ভবনে কাউকে ঢুকতে বা বের হতে দেওয়া হয়নি। অবরুদ্ধ করে রেখেছিল ডিরেক্টর নার্সিং সার্ভিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের। এরপর ১০ সদস্যের প্রতিনিধিদল তাদের দাবির বিষয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রীর সঙ্গে আলেচানার জন্য তার বাসায় গিয়েও স্বাক্ষাৎ পাননি।

এর আগে বুধবার একই দাবিতে তারা শাহবাগ মোড়ে সাড়ে তিন ঘণ্টা অবস্থান করে সড়ক অবরোধ করে রাখে। পরে পুলিশ সাউন্ড গ্রেনেড, পেপার স্প্রে, জলকামান নিক্ষেপ ও লাঠিপেটা করে সরিয়ে দেয় বিক্ষোভকারী নার্সদের।