মেইন ম্যেনু

ফরমালিনের বিকল্প উপকারী ব্যাকটেরিয়া

ব্যবসায়ীরা সাধারণত পচনশীল শাকসবজি ও খাবারে ফরমালিন ব্যবহার করে। দেশে সংরক্ষণের যথেষ্ট সুবিধা না থাকায় এই সমস্যাটি দিন দিন ভয়াবহ রূপ নিচ্ছে। তবে সম্ভবত এ সমস্যার সমাধাণ বের করে ফেলেছেন বাংলাদেশি বিজ্ঞানী ড. ইসমত আরা। তিনি এমন এক প্রজাতির ব্যাকটেরিয়া আবিষ্কার করেছেন যা পচনশীল খাবার সংরক্ষণে ব্যবহার করা যাবে। শুধু তা-ই নয় প্রায় সব ধরনের পচলশীল বর্জ্যকে দ্রুত পচিয়ে মাটির উর্বরতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে এই উপকারী ব্যাকটেরিয়া।

মঙ্গলবার সকাল ১১টায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির সাগর-রুনি মিলনায়তনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ আবিষ্কারের কথা জানান কানাডা প্রবাসী বিজ্ঞানী ড. ইসমত আরা।

বেসরকারি সংস্থা অ্যাকটিনো রিসার্চ ইন করপোরেশন বাংলাদেশ অ্যান্ড কানাডা আয়োজিত এই সংবাদ সম্মেলনে বিজ্ঞানী তুলে ধরেন তার আবিষ্কৃত ব্যাকটেরিয়ার বিভিন্ন পরিবেশবান্ধব কার্যকারিতার কথা। এটি ‌অ্যাকটিনোমাইসিটিস প্রজাতির ব্যাকটেরিয়া।

তিনি বলেন, ‘‌আমার তৈরি অ্যাকটিনোমাইসিটিস ব্যাক্টেরিয়া কাজ করবে ঢাকা শহরের সমস্ত বর্জ্যকে উৎকৃষ্ট মাটিতে রূপান্তর করতে এবং এই ব্যাকটেরিয়া থেকে তৈরি পরিবেশ বান্ধব স্প্রে কাজ করবে গাছের এবং শাকসবজির ছত্রাক দমনে। যার ফলে পচনশীলতা থেকে রক্ষা পাবে শাকসবজি থেকে শুরু করে অন্যান্য খাবার-দাবার।’

ড. ইসমত আরো বলেন, ‘‌যত বেশি লোক কাজ করবে আমার প্রজেক্টের সাথে তত বেশি বর্জ্য রূপান্তরিত হবে মাটিতে। এতে করে বিপুল কর্মসংস্থানের সৃষ্টি হবে।’

তবে কোনো প্রকার প্রাণিজ মলমূত্র এই প্রজেক্টের আওতায় থাকবে না বলে জানান বিজ্ঞানী।