মেইন ম্যেনু

ফুলবাড়ী নির্বাচন অফিসে উৎকোচ নিয়ে এনআইডি কার্ড সংশোধন !

শাহ্ আলম শাহী, দিনাজপুর থেকে : দিনাজপুরের ফুলবাড়ী নির্বাচন অফিসের ষ্টেনো ও তার পুত্র আইডিয়া প্রজেক্টের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর কর্তৃক মোটা অংকের উৎকোচ গ্রহণের মাধ্যমে (জাতীয় পরিচয়পত্র) এনআইডি কার্ড সংশোধনের লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগে জানা গেছে, ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের রাজারামপুর মজিদপুর গ্রামের মো: ছোর জামান মন্ডলের ছেলে মো: আব্দুল আলিম মন্ডল সম্প্রতি তার এনআইডি কার্ডের নাম ও বয়স সংশোধনের জন্য উপজেলা নির্বাচন অফিসে আসেন। এসময় নির্বাচন অফিসে কর্মরত ষ্টেনো মমতাজ শিরিন জোতি ও তার ছেলে আইডিয়া প্রজেক্টের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর সাদমান সাকিব (সংকেত) আইডি কার্ডে নাম ও বয়স সংশোধনের জন্য বিভিন্ন জায়গায় টাকা লাগবে বলে দাবী করেন। আব্দুল আলিম মন্ডল তাদের কথায় রাজী হয়ে তার আইডি সংশোধনের জন্য বিভিন্ন সময় তাদের হাতে ৫৫ হাজার টাকা উৎকোচ প্রদান করেন। এরপর দীর্ঘদিন অতিবাহিত হলেও আ: আলিম মন্ডলের আইডি কার্ড সংশোধন না করে বিভিন্ন তালবাহানায় ঘোরাতে থাকেন। এক পর্যায়ে তিনি বিরক্ত হয়ে উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো: আহসান হাবিবের সরনাপন্ন হন। পরবর্তীতে নির্বাচন অফিসার আইডি কার্ডটি সংশোধন করে দেন। আ: আলিম মন্ডল তার কার্ডটি সংশোধনের পর নির্বাচন অফিসের ষ্টেনো মমতাজ শিরিন জোতি ও তার ছেলে আইডিয়া প্রজেক্টের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর সাদমান সাকিব (সংকেত)-এর বিরুদ্ধে উৎকোচের বিষয়টি নিয়ে গত ১৮ মে ২০১৬ইং তারিখে ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: এহেতেশাম রেজা-এর কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

বিষয়টি নিয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: এহেতেশাম রেজা-এর সাথে কথা বললে তিনি জানান, অভিযোগ পেয়েছি বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অপরদিকে উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো: আহসান হাবিবের সাথে কথা বললে তিনি জানান, বিষয়টি সর্ম্পর্কে আমি অবগত হয়ে দ্রুত আ: আলিম মন্ডলের আইডি কার্ড সংশোধন করে দিয়েছে। আমার অজান্তে তারা কাজটি করেছে এবং কাজটি সর্ম্পর্ণ বেআইনিভাবে করার চেষ্টা করেছে যা মোটেও ঠিক হয়নি।

বিষয়টি নিয়ে নির্বাচন অফিসের ষ্টেনো মমতাজ শিরিন জোতি ও তার ছেলে একই অফিসের আইডিয়া প্রজেক্টের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর সাদমান সাকিব (সংকেত)-এর সাথে কথা বললে তারা বলেন, বিষয়টি সর্ম্পুণ মিথ্যে এবং আমাদের ফাঁসানোর জন্য এটা করা হয়েছে।

উল্লেখ্য যে, ইতিপূর্বেও নির্বাচন অফিসের ষ্টেনো মমতাজ শিরিন জোতি ও তার ছেলে একই অফিসের আইডিয়া প্রজেক্টের ডাটা এন্ট্রি অপারেটর সাদমান সাকিব (সংকেত)-এর বিরুদ্ধে বিভিন্ন জনের কাছে উৎকোচ গ্রহনের মৌখিক অভিযোগ উঠে। তবে তারা স্থানীয় হওয়া বিষিয়টি বিভিন্ন ভাবেই প্রভাব খাটিয়ে ধামাচাপা দেয়।