মেইন ম্যেনু

ফেসবুক টাইমলাইনে অশ্লীল যেকোনো কিছু ঠেকাতে

ফেসবুকে আপনার কোনো বন্ধুর অ্যাকাউন্ট থেকে হঠাৎ করেই এমন ছবি, ভিডিও বা কোনো লিংক এল, যা দেখে আপনি নিজেই বিব্রত। আর ওই বন্ধুর সঙ্গে এমন অশালীন ও অরুচিকর বিষয়ও যায় না। এমনটা ইদানীং অনেকের ক্ষেত্রেই দেখা যায়। এসব আসলে এক ধরনের ম্যালওয়্যার, যা পর্নো-ট্রোজান নামে পরিচিত। অন্য কোনো বন্ধুর দেওয়া এমন লিংকে ক্লিক করলে আক্রান্ত হতে পারে আপনার ফেসবুক প্রোফাইল। আর তাৎক্ষণিকভাবে তা বন্ধুদের টাইমলাইনে ট্যাগ হওয়ার পাশাপাশি আপনি যে কম্পিউটারে ব্যবহার করছেন সেখানেও ছড়িয়ে পড়তে পারে।

এ ধরনের সমস্যায় পড়লে শুরুতেই আপনার অ্যাকাউন্টের পাসওয়ার্ড বদলে নিন। এরপর যেসব পর্নো আপনার টাইমলাইনে ইতিমধ্যে শেয়ার হয়েছে সেগুলো মুছে ফেলুন এবং রিপোর্ট করুন। সম্ভব হলে ভালো অ্যান্টিভাইরাস দিয়ে আপনার কম্পিউটারটি স্ক্যান করে নিন। এ ক্ষেত্রে এফ-সিকিউর স্ক্যান, ট্রেন্ড মাইক্রো স্ক্যান, ইস্যাট স্ক্যান, মাইক্রোসফট নিরাপত্তা সফটওয়্যার প্রভৃতির যেকোনো একটি দিয়ে অনলাইনে সরাসরি স্ক্যান করুন।

যদি আপনার ব্রাউজার গুগল ক্রোম হয় তবে browser-specific scan করুন। আপনার ব্রাউজারটি সর্বশেষ সংস্করণ হালনাগাদ করে নিন এবং আপনার অ্যাকাউন্টের নিরাপত্তা শক্তিশালী (স্ট্রং) করে ট্যাগ রিভিউ দিয়ে রাখুন। কেউ যেন কোনো কিছু ট্যাগ করলে আপনার রিভিউ ছাড়া যেন টাইমলাইনে দেখানো না হয়। এটি করতে চাইলে Settings থেকে Timeline and Tagging Settings-এ গিয়ে Who can add things to my timeline?-এ Review posts that friends tag you in before they appear on your Timeline অপশনটি সক্রিয় করুন। Suspicious অ্যাড-অনটি চালু থাকলে সেটি মুছে ফেলুন।

এরপরও আবারও পর্নো শেয়ার হলে, সাত-আট ঘণ্টার জন্য আপনার অ্যাকাউন্ট নিষ্ক্রিয় বা ডিঅ্যাক্টিভেট করুন। আপনার অ্যাকাউন্টের অনাকাঙ্ক্ষিত ছবি শেয়ারের জন্য বন্ধুদের কাছে দুঃখিত লিখে একটি স্ট্যাটাস দিতে পারেন। তাতে উল্লেখ করুন যদি আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে কোনো খারাপ পোস্ট চোখে পড়ে বা কোনো লিংক চোখে পড়ে তা যেন ক্লিক না করেন। টাইমলাইনে যাতে করে আপনার কোনো বন্ধুর ভুলের কারণে পর্নো আসতে না পারে সে জন্য সতর্ক থাকুন। এ ধরনের কোনো লিংকে ক্লিক করবেন না এবং ফেসবুকে এ-সংক্রান্ত কোনো ভিডিওতে ক্লিক করা থেকে বিরত থাকুন।

ট্যাগ রিভিউ অপশনটি চালু রাখুন। কেউ যেন কোনো কিছু ট্যাগ করলে আপনার রিভিউ ছাড়া যেন টাইমলাইনে প্রদর্শন না হয়। ফেসবুক অ্যাপ বা গেমসে ক্লিক করার ব্যাপারে সতর্ক থাকুন এবং সন্দেহজনক অ্যাপ মনে হলে মুছে ফেলুন।