মেইন ম্যেনু

ফ্রান্সে মসজিদ বন্ধের নিন্দা

ফ্রান্সে সন্ত্রাসী হামলার জের ধরে ‘চরমপন্থা লালনের’ অভিযোগে মসজিদগুলো বন্ধ করে দেওয়ার নিন্দা জানিয়েছে বেশ কয়েকটি মানবাধিকার সংগঠন। খবর আলজাজিরার।

মানবাধিকার সংগঠনগুলো বলেছে, এ ধরনের কার্যক্রম চরমপন্থাকে বন্ধ করবে না এবং তা সংখ্যালঘু মুসলিমদের মধ্যে বিচ্ছিন্নতাবাদী মানসিকতা সৃষ্টি করবে।

জরুরি অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে ফ্রান্সে ইতোমধ্যে অন্তত তিনটি মসজিদ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। দেশটির এক মসজিদের ইমাম জানিয়েছেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা রক্ষায় প্রচারণার অংশ হিসেবে আরও ১০০ থেকে ১৬০টি মসজিদ বন্ধ করা হবে।

তিউনিশিয়ান বংশোদ্ভূত ফরাসী মানবাধিকারকর্মী সামিয়া হাথরৌবি বলেন, ‘বিশেষজ্ঞরা প্রমাণ করেছেন যে, সুসংগঠিত সম্প্রদায়গুলোর মধ্য থেকে সন্ত্রাসীরা বেরিয়ে আসে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘ফরাসী প্রেসিডেন্ট ফ্রাঁসোয়া ওলাঁদ পুনর্বার বলেছিলেন, মুসলিমদের আলাদা করা হবে না। কিন্তু এ ধরনের কর্মকাণ্ড তার কথার বিরোধী। জরুরি অবস্থায় তল্লাশির ক্ষেত্রে মসজিদ ও মুসলিমদের লক্ষ্যবস্তু বানানো হচ্ছে।’

এ ধরনের কর্মকাণ্ডকে মানবাধিকার লঙ্ঘন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

প্রসঙ্গত, ১৩ নভেম্বর ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে একাধিক হামলায় ১৩০ জন নিহত হন। হামলার পরপরই আইএস এর দায় স্বীকার করে।

দেশটির স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বার্নার্ড ক্যাজেন্যুভে জানিয়েছেন, হামলার ঘটনার পর থেকে এখন পর্যন্ত দুই হাজার ২৩৫টি বাড়ি ও ভবনে তল্লাশি চালিয়েছে নিরাপত্তা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। ২৩২ জনকে হাজতে নেওয়া হয়েছে। উদ্ধার করা হয়েছে ৩৩৪টি অস্ত্র।

ফ্রান্সে ৫৫ থেকে ৬২ লাখ মুসলিম রয়েছে। দেশটির মোট জনসংখ্যার তুলনায় তা প্রায় ৭ দশমিক ৬ শতাংশ।