মেইন ম্যেনু

বইমেলার দায়িত্ব ছাড়তে চায় বাংলা একাডেমি

প্রকাশনা প্রতিষ্ঠানগুলো চাইলে অমর একুশে গ্রন্থমেলার দায়িত্ব তাদের হাতে ছেড়ে দেয়া হবে বলে মন্তব্য করেছেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক অধ্যাপক শামসুজ্জামান খান।

সোমবার বিকেলে বাংলা একাডেমির ড. মুহম্মদ শহীদুল্লাহ ভবনের সভাকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক বলেন, ‘প্রকাশকদের হাতে বইমেলার দায়িত্ব ছেড়ে দিতে আমাদের কোনো আপত্তি নেই। কিন্তু সমস্যা বড়ই জটিল, সবকিছু এতো সহজ নয়। তাদের তিনজনকে দায়িত্ব দিলে তারা ১২টা গ্রুপ বানাবে। প্রতিবারই তারা বাইরে থেকে মেলার আয়োজন করবে বলে। কিন্তু দায়িত্বের কথা বললেই ফুস হয়ে যায়।’

প্রকাশকরা বইমেলার দায়িত্ব নিলে বাংলা একাডেমির লোকজন গবেষণায় মন দিতে পারবেন বলেও মনে করেন একাডেমির মহাপরিচালক।

এবারের বইমেলায় স্টল বিন্যাস নিয়ে প্রকাশকদের অব্যাহত অভিযোগের কথা স্বীকার করে শামসুজ্জামান খান বলেন, ‘বাংলা একাডেমিতে যারা কাজ করেন তারা সবাই কবি-সাহিত্যিক-গবেষক। এদের বইমেলা করার মতো প্রশিক্ষণ বা অভিজ্ঞতা নেই। আমরা যে এতো বড় আয়োজন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করছি, এটা আমাদের সাফল্য মনে করি।’

তাদের কাজে ‘প্রশংসা করার’ জন্য সাংবাদিকদের আহ্বান জানান তিনি। বলেন, ‘আপনারা আমাদের একটু প্রশংসা করুন। প্রকাশকরা বইমেলা করতে পারলে দুই-চার বছরের মধ্যেই বাংলা একাডেমি দায়িত্ব ছেড়ে দেবে।’

মেলার পৃষ্ঠপোষক আইএফআইসির ব্যানারে বানান ভুলের ব্যাপারে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে শামসুজ্জামান খান বলেন, ‘ওইসব ব্যানার সরিয়ে ফেলা হয়েছে।’ এ সময় তিনি হাসতে হাসতে ওই ব্যাংকের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের উদ্দেশ্যে বলেন, ‘খালি পকেটে টাকা গুঁজলেই হবে? বানানটাও ভালো করে জানতে হবে।’

সংবাদ সম্মেলনে মেলার সপ্তাহ পার হলেও নির্ধারিত মিডিয়া সেন্টার চালু না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন সাংবাদিকেরা। এক প্রশ্নের জবাবে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক বলেন, ‘পরশুদিনের (বুধবার) মধ্যেই মিডিয়া সেন্টার চালু হয়ে যাবে।’

মেলার আগে একাডেমি কর্তৃপক্ষ সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে খাবার দোকান রাখার কথা বললেও দোকান চালু করা হয়নি। এ ব্যাপারে শামসুজ্জামান খান বলেন, ‘আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর অনুরোধে খাবার দোকান রাখা যায়নি। আমরা নিরাপত্তাকে অগ্রাধিকার দিয়েছি সবকিছুর আগে। তারা বলেছে, কোনো বাজে ঘটনা ঘটলে নিরাপত্তা বাহিনী এর দায় নেবে না।’

সংবাদ সম্মেলনে একাডেমির সচিব মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেনসহ আরো উপস্থিত ছিলেন একাডেমির পরিচালকরা।