মেইন ম্যেনু

বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়া জড়িত ছিল সন্দেহ নেই: প্রধানমন্ত্রী

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার ষড়যন্ত্রে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের সম্পৃক্ততার প্রমাণ হিসেবে একটি ব্যাখ্যা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিকালে রাজধানীর কৃষিবিদ ই্নস্টিটিউশনে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন ছাত্রলীগ আয়োজিত শোক দিবসের আলোচনায় এই ব্যাখ্যা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

ছাত্রলীগের এই আলোচনার মধ্য দিয়ে শোক দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগের মাসজুড়ে কর্মসূচি শেষ হলো। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার স্মরণে ১ আগস্ট থেকে শুরু হয় নানা কর্মসূচি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু হত্যার পর এর বিচার বন্ধ করে রেখেছিলেন জিয়াউর রহমান। বিদেশিরা তদন্ত করতে চাইলেও তাদেরকে যে সুযোগ দেয়া হয়নি।

প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু হত্যার কয়েক বছর পর যু্ক্তরাজ্যে গিয়ে বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার দাবিতে জনমত গঠনের চেষ্টা করলাম। সে দেশের বেশ কয়েকজন এমপিও আমাদের সঙ্গে ছিলেন। তারা সবাই মিলে স্যার টমাস উইলিয়ামসকে বাংলাদেশে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিলেন। কিন্তু জিয়াউর রহমান তাকে ভিসা দেয়নি ‘

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কেন তাকে (স্যার টমান উইলিয়াম) বাংলাদেশে আসতে দেয়া হয়নি? জিয়া চায়নি এই ঘটনার তদন্ত হোক। কারণ, তদন্ত হলে তার সম্পৃক্ততার প্রমাণ হয়ে যেতো।’

বাংলাদেশে আসার আগেই বঙ্গবন্ধু হত্যার বিচার করার দৃঢ় প্রতিজ্ঞা নিয়ে এসেছিলেন জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বাংলার মাটিতে ফিরে আসার আগেই প্রতিজ্ঞা করেছিলাম বাংলার মাটিতে এই বিচার করবো, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ফিরিয়ে আনবো, মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস আবার জনগণকে জানাবো। আমরা সে বিচার করেছি।’

যু্দ্ধাপরাধের বিচারও চালু থাকবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘স্বজন হারানোর দুঃথ আর কেউ বুঝুক আর না বুঝুক, আমি তা বুঝি। আমার মত যারা স্বজন হারিয়েছেন তারাও বিচার পাবেন।’

ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের বঙ্গবন্ধুর আদর্শ অনুসরণের আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তার মতো মানুষ হতে হবে।’ শিগগির বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনীর দ্বিতীয় খণ্ড শিগগির প্রকাশ হবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। ছাত্রলীগের সব নেতা-কর্মীকে এই আত্মজীবনী পড়ার আহ্বান জানান তিনি। বলেন, ‘অনেক কষ্ট করে তার ডায়েরি জোগাড় করতে হয়েছে। তোমরা এটা পড়বে। এতে অনেক অজানা অধ্যায় থাকবে।’

ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদেরকে মনযোগ দিয়ে পড়ালেখা করার পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘শিক্ষাটাই সবচেয়ে বড়। তোমাদেরকে লেখাপড়া করে মানুষের মত মানুষ হতে হবে। আধুনিক বিশ্বের জ্ঞান বিজ্ঞানের সঙ্গে তাল মেলাতে হবে।’