মেইন ম্যেনু

বছর শেষের আগেই করে ফেলুন এই কাজগুলো

দেখতে দেখতে প্রায় শেষ হয়ে এলো বছরটা। বছরের শুরুতে হয়তো অনেক আশা ছিলো, এটা করবেন সেটা করবেন, সব হয়তো করে উঠতে পারেননি। কিন্তু বছর শেষের এই সময়টায় জলদি করে ফেলতে পারেন কিছু জরুরী কাজ। এই কাজগুলো আপনার জীবনের বেশ কিছু ক্ষেত্রেই খুব কাজে আসবে। Popsugar থেকে জানা যায় ২০১৬ সালটাকে ভালোভাবে শুরু করার জন্য এখনই করে ফেলা দরকার এই কাজগুলো-

১) ডাক্তার দেখিয়ে ফেলুন। ডেন্টিস্ট, চোখের ডাক্তার এবং সাধারণ ডাক্তারের সাথে যদি সারাবছর দেখা নাও করেন, তারপরেও এই সময়টায় একবার দেখা করে আসুন। এতে আপনার স্বাস্থ্যে কোনো সমস্যা আছে কিনা তা ধরা পড়বে। কোনো সমস্যা না থাকলেও এটা ভেবে শান্তি পাবেন যে বছরে অন্তট একবার তো চেকআপ করানো হয়েছে।

২) ট্যাক্সের কাগজপত্র এবং হিসাব গুছিয়ে রাখুন।

৩) ধার করা জিনিসপত্র ফেরত দিয়ে দিন। আমরা অনেকেই বন্ধু-বান্ধব, প্রতিবেশি এবং আত্মীয়ের থেকে এটা সেটা ধার নেই। শীতের রাত্রে চাদর, পড়ার জন্য বই, প্রতিবেশীর একটা চামচ বা প্লেট- এগুলো মনে করে ফেরত দিয়ে দিন এখনই। নয়তো বছরের পর বছর গড়িয়ে যাবে আর ফেরত দেওয়া হবে না। কোনো কিছু নষ্ট বা ময়লা হয়ে থাকলে এগুলো ঠিকঠাক করে তারপর ফেরত দিন।

৪) পরিষ্কার করা শুরু করুন। সাড়া বছর হয়তো ময়লা পরে আছে আপনার বুকশেলফে। বছর তো শেষ হতে চলল, এখন তার ধুলোটা ঝারুন। পুরো বাড়িতেই চালান একটা পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অভিযান। দূর করে দিন জঞ্জাল। অদরকারী জিনিস ফেলে দিন, বিক্রি করে দিন অথবা দান করে দিন। নতুন বছর শুরু করতে পারবেন অনেক ফুরফুরে মনে।

৫) এমন তিনটি কাজ করুন যেগুলো এই বছরেই করার ইচ্ছে ছিলো। হয়তো এই বছরে অনেক কিছু করার ইচ্ছে ছিলো কিন্তু সব করা হয়ে ওঠেনি। এই না করা কাজগুলোর সব করতে হবে না। সময়ে বের করে সবচাইতে দরকারি ৩টি কাজ করুন। হয়তোবা বাড়ির কোনো কাজ করে দেবার কথা, নতুন কিছু কেনার কথা, বন্ধুদের সাথে বেড়াতে যাবার কথা, কোনো নতুন বই পরার কথা। এগুলো করে ফেলুন এখনই। কে জানে নতুন বছরে করতে পারবেন কিনা।

৬) ডাটা স্পেস খালি করুন। এখন সবারই আছে ডেস্কটপ, ল্যাপটপ, ফ্ল্যাশ ড্রাইভ, পোর্টেবল ইত্যাদি। এগুলোর দিকে খেয়াল করলে দেখবেন অনেক অদরকারী জিনিস স্পেস নিয়ে আছে। এগুলো ডিলিট করে ডাটা স্পেস খালি করে ফেলুন। নতুন বছরে কাজে আসবে।

৭) আপনি যদি বেকার হয়ে থাকেন, তবে চাকরি খোঁজার দিকে মনোযোগ বাড়িয়ে দিন। নতুন চাকরি না খুঁজলেও নিজের রিজুমি আপডেট করে রাখুন।

৮) নতুন বছরের লক্ষ্য নিয়ে ভাবুন। ২০১৬ সালে আপনি কি করতে চান? নিজের কী কী উন্নতি করতে চান? এখনই এগুলো নিয়ে চিন্তা করে রাখুন। খুব বেশি লক্ষ্য নয়, খুব ভেবেচিন্তে মাত্র একটি লক্ষ্য ঠিক করে রাখুন। হয়তো গতবছরেও আপনার এই লক্ষ্য ছিলো কিন্তু তা পূরণ করতে পারেননি। এটা হতে পারে ওজন কমানোর লক্ষ্য, টাকা জমানোর লক্ষ্য, ভালো কোনো চাকরির লক্ষ্য, নতুন কিছু শেখার লক্ষ্য ইত্যাদি।

৯) পরিবারকে সময় দিন। সারা বছর হয়তো তাদেরকে যথেষ্ট সময় দিতে পারেননি, সুতরাং এটাই সময়। শুধু পরিবার নয়। অনেক দিন দেখা হয়নি এমন বন্ধুর সাথেও দেখা করতে পারেন।
১০) তালিকা করুন। এই বছরে কী কী লক্ষ্য অর্জন করতে পেরেছেন সেগুলোর একটি তালিকা করুন। এটা নিজে পরুন, কাছে কোনো মানুষকে পরে শোনান। মনটা ভালো লাগবে। এর পাশাপাশি সেসব কাজের তালিকা করুন যেগুলো গত বছরে করতে চেয়েছিলেন কিন্তু করতে পারেননি। এই কাজগুলো এই বছরে করে ফেলার সংকল্প করুন অথবা এগুলো করা যাবে না এটা ধরে নিয়ে তালিকাটা পুড়িয়ে ফেলুন। শুভ হোক আপনার নতুন বছরটি।