মেইন ম্যেনু

বন্ধুর সঙ্গে রাতভর উল্লাস : সকালে যুবক ফিরলেন পুরুষত্বহীন হয়ে

বন্ধুর বিশ্বাসঘাতকতার অনেক দৃষ্টান্তই গল্প-উপন্যাস থেকে শুরু করে বাস্তব জীবনে দেখা যায়। কিন্তু বন্ধুর বিশ্বাসভঙ্গের যে চরম মূল্য দিতে হল পঙ্কজ সিংহ চৌহানকে, তা কল্পনারও অতীত। প্রিয় বন্ধুর ষড়যন্ত্রে নিজের যৌন ক্ষমতাই হারাতে হল তাঁকে।

গ্বালিয়রের চন্দননগরের বাসিন্দা পঙ্কজ সিংহ চৌহান এক প্লাস্টিক ব্যবসায়ীর কারখানায় কাজ করেন। মদের নেশা তাঁর অনেক দিনের। মাঝে মধ্যেই নেশায় চুর হয়ে বেহুঁশ হয়ে পড়ে থাকতে দেখা যেত তাঁকে। মাস কয়েক আগে তিনি ঠিক করেন যে, নেশা থেকে মুক্ত হওয়ার চেষ্টা করবেন এ বার। দরকার হলে ডাক্তারের সাহায্য নেবেন। সম্প্রতি বিড়লানগর নিবাসী বন্ধু রাজু এই ব্যাপারে পঙ্কজকে সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দেয়। রাজু বলে, তার চেনা ভাল ডাক্তার রয়েছেন। তিনি পঙ্কজের একটা মেডিক্যাল চেক-আপ করবেন। তার পরে সেই ডাক্তার একটা ওষুধ দেবেন পঙ্কজকে, যেটি খেলে নেশার কবল থেকে মুক্ত হতে পারবেন পঙ্কজ।

আশান্বিত হয়ে পঙ্কজ বিড়লানগরে চলে যান। সেখানে রাজু তাঁকে বলে, ‘তোর মদের নেশা তো কেটেই যাচ্ছে। চল, আজ শেষ বারের মতো চুটিয়ে মদ খাই।’ রাজি হয়ে যান পঙ্কজ। কিন্তু তিনি বোঝেননি মদের মধ্যে অন্য কোনও নেশার দ্রব্য মেশানো রয়েছে।

মদ খাওয়ার পরেই হুঁশ হারান পঙ্কজ। মাঝে অল্প কিছু ক্ষণের জন্য জ্ঞান ফিরলে তিনি বুঝতে পারেন, রাজু তাঁকে কোনও ডাক্তারের কাছে নিয়ে গিয়েছে। সকাল বেলা যখন সম্পূর্ণ জ্ঞান ফেরে পঙ্কজের, তিনি দেখেন, শুয়ে রয়েছেন কোনও হাসপাতালের একটি বিছানায়। সামনে দাঁড়িয়ে রয়েছে রাজু আর তার মামাতো ভাই। গোপনাঙ্গে ব্যথা টের পেয়েই পঙ্কজ বুঝতে পারেন, কী সর্বনাশ ঘটে গিয়েছে তাঁর।

রাজুকে প্রশ্ন করে পঙ্কজ জানতে পারেন, তাঁর ভ্যাসেকটমি করিয়ে দিয়েছে রাজু। ভ্যাসেকটমি প্রকৃত পক্ষে পুরুষদের স্থায়ী নির্বীজকরণ প্রক্রিয়া। এক বার কোনও পুরুষ এই অপারেশন করালে আর কোনও দিন সেই তাঁর পক্ষে সন্তানের পিতা হওয়া সম্ভব নয়।

পঙ্কজ এই নিয়ে রাজুর সঙ্গে বাকবিতণ্ডা শুরু করলে রাজু তাঁকে প্রাণনাশের হুমকি দেন। ভয়ে চুপ করে যান পঙ্কজ। রাজু এর পর গ্বালিয়র-গামী একটি বাসে পঙ্কজকে তুলে দেন।

বাড়ি এসে নিজের পরিজনদের এই ভয়াবহ ঘটনার কথা জানান পঙ্কজ। পঙ্কজের মা এই বিষয়ে রাজুর বিরুদ্ধে পুলিশে অভিযোগ দায়ের করেন। পুলিশ রাজুর খোঁজে তার বাড়িতে গেলে জানতে পারে, সে কয়েক দিন ধরেই বেপাত্তা।

কিন্তু কেন এই অদ্ভুত ঘটনা ঘটালো রাজু? আসলে ভ্যাসেকটমি অপারেশন করালে সরকারের তরফে কিছু টাকা পাওয়া যায়। সেই টাকার লোভেই রাজু পঙ্কজের ভ্যাসেকটমি করি দিয়েছে বলে অনুমান পুলিশের।