মেইন ম্যেনু

বলিউড সুন্দরীদের এত বেশি আত্মহত্যার প্রবণতা কেন? কিসের এত দুঃখ তাদের?

বলিউড সুন্দরীদের মাঝে আত্মহত্যার প্রবণতা আজকের নতুন নয়। এ যাবৎ বলিউডের অনেক সুন্দরীই বেছে নিয়েছেন আত্মহত্যার পথ। অনেকে আবার আত্মহত্যার চেষ্টাও করেছেন। তাহলে কিসের এত দুঃখ তাদের?

গাড়ি বাড়ি সব হল, তারপরই দুম করে হয় গলায় ফাঁসি বা হাতের সিরা কেটে সুইসাইট। বেশিরভাগই অবশ্য মরার আগে একটি করে সুইসাইট নোট রেখে গেছেন। আর বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই একটাই কারণ পার্সোনাল লাইফে সমস্যা।

বোধহয় জানতেন, বেঁচে থেকে মিডিয়ার নজরে না আসলেও তার আত্মহত্যার গপ্পো ঠিকই নজর কাড়বে। তাই সুইসাইট নোট রেখে না গেলে যার তার উপর হাল্লাবোল হতে পারে মিডিয়া।

১। ১৯৯৩ সালে ফ্ল্যাটের ব্যালকনি থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করেছিলেন বলিউড সুন্দরী দিব্যা ভারতী। বলিউডের

অসম্ভব রকম জনপ্রিয় ছিলেন এই নায়িকা। তিনি যখন আত্মহত্যা করেন, তখন তার বয়স মাত্র ১৯। আর এই ১৯ বছর বয়সে তার কিসের এত দুঃখ ছিল? তবে এই ঘটনা থুরি দুর্ঘটনা সত্যি বেদনাদায়কই ছিল। যদিও বলা হয়। আত্মহত্যা নয়, মেরে ফেলা হয়েছিল নায়িকাকে।

২। বলিউড দারুণ আলোচিত একজন অভিনেত্রী ছিলেন পারভিন ববি। তার আত্মহত্যার দুদিন বাদে মৃতদেহ উদ্ধার হয়েছিল। ২০০৫ সালের এই ঘটনাকে আ্যত্মহত্যারই খেতাব দেওয়া হয়েছিল। তবে ঠিক কি কারণে জীবনের শেষ ধাপে পারভিন এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন তা জানা যায়নি।

৩। ভারতের অসম্ভব রকম জনপ্রিয় ও আলোচিত সমালোচিত অভিনেত্রী সিল্ক স্মিতা। সাউথের সেক্স বোম সিল্ক স্মিতা। ১৯৯৬ সালে নিজেরই বেডরুমে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করে ফেললেন। পাশে পাওয়া সুইসাইট নোট অনুযায়ী, জীবন থেকে হতাশ হয়েই এমন সিদ্ধান্ত তার।

৪। জিয়া খান তার কেরিয়ারের শুরুই করেছিলেন নিঃশব্দে। যদিও তার ঝুলিতে তেমন কোনো ফিল্ম ছিল না। তার পরেও ২০১৩ সালের ৩ জুন নিজের জুহুর ফ্ল্যাটে আত্মহত্যা করেন তিনি। যদিও তার আত্মহত্যার কারণ এখনও অজানা। যদিও জিয়ার মা, বয়ফেন্ড সুরজ পঞ্চোলির উপরই অভিযোগ আরোপ করেছেন।

৫। গত শুক্রবার সেই একই পন্থায় গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেন অভিনেত্রী প্রত্যুষা বন্দোপাধ্যায়। এখনও পর্যন্ত খবর যা বলছে, ব্যক্তিগত কারণে এই মৃত্যু।

অন্যদিকে বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াঙ্কা চোপড়াও নাকি তার জীবনে তিনি ২ থেকে ৩ বার ছাদ থেকে লাফিয়ে আত্মহত্যা করার চেষ্টা করেছিলেন।