মেইন ম্যেনু

বাংলাদেশের পরিশ্রমী মানুষ পিছিয়ে পড়ে না: কিম

বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিম বলেছেন,বাংলাদেশের মানুষ পরিশ্রমী। তারা কোনো কাজে পিছিয়ে পড়ে না। আমরা উপকারভোগীদের কথা বলে আশ্বস্ত হয়েছি। আমরা এখানে অতিরিক্ত বিনিয়োগ করব।

মঙ্গলবার বরিশালের বাবুগঞ্জের দক্ষিণ রাকুদিয়া গ্রামে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে পরিচালিত গ্রাম সমিতি পরিদর্শন শেষে তিনি সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন।

এর আগে সকাল সাড়ে ৮টায় তিনি হেলিকপ্টার যোগে বরিশাল বিমানবন্দরে পৌঁছান। বিমানবন্দরে নেমে সরাসরি বাবুগঞ্জ উপজেলা দক্ষিণ রাকুদিয়া গ্রামের দক্ষিণ রাকুদিয়া গ্রাম সমিতি পরিদর্শন করেন। এসময় সমিতির সদস্যরা তাকে স্বাগত জানান।

বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্ট উপকারভোগী সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে সন্তোষ প্রকাশ করেন তিনি।

বিশ্বব্যাংক প্রেসিডেন্ট এরপর উজিরপুর উপজেলার ভরসাকাঠী গ্রামের ভরসাকাঠী প্রাইমারি স্কুল কাম সাইক্লোন সেন্টার পরিদর্শন করেন। সেখানে তিনি সোলার প্যানেল পরিদর্শন করেন। এরপর বিশ্বব্যাংক প্রধান বেলা ১১টায় হেলিকপ্টারে ঢাকার উদ্দেশে বরিশাল ত্যাগ করেন।

২০১২ সালে নতুন জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্প নামে এসডিএফ একটি প্রকল্প বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে নারীদের দারিদ্র বিমোচনে কাজ করছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে ৫০ লাখ নারীর দারিদ্র বিমোচন হবে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

দারিদ্র্য বিমোচনে বাংলাদেশের সাফল্য উদযাপনে রবিবার বিকালে বাংলাদেশে আসেন জিম ইয়ং কিম। এবারের ‘বিশ্ব দারিদ্র্য বিমোচন দিবস’ বাংলাদেশেই পালন করবেন তিনি।

সোমবার বিকালে তিনি ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এর আগে সকালে সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতের সঙ্গে সাক্ষাত করেন। পরে যৌথ সংবাদ সম্মেলনে তিনি বাংলাদেশের দারিদ্র বিমোচন, নারীর ক্ষমতায়ন, জনগণের পুষ্টি আর রোগ প্রতিরোধ কার্যক্রমের সাফল্যে বিস্ময় প্রকাশ করেন বিশ্বব্যাংক প্রধান ।

এসময় কিম বাংলাদেশে আগামীতে ঋণের পরিমাণ দ্বিগুন করারও ঘোষণা দেন। পাশাপাশি পুষ্টি প্রকল্পে একশ কোটি ডলার সহায়তা দেয়ারও ঘোষণা দেন।