মেইন ম্যেনু

বাংলাদেশ ফুটবলে ফিক্সিং ভয়!

এবার ফিক্সিং ভয় জেঁকে বসেছে বাংলাদেশ জাতীয় ফুটবল দলে। গতকাল নেপালের পাঁচ ফুটবলার এই অভিযোগে গ্রেপ্তার হওয়ার পর বিষয়টি নজরে এসেছে অনেকের। নেপালের পুলিশ ধারণা করছে, বাংলাদেশ এবং আফগানিস্তানের বিপক্ষেও ফিক্সিং করেছেন দেশটির বেশ কয়েকজন ফুটবলার।

আন্তর্জাতিক ফুটবলে মাঝে মাঝে ম্যাচ পাতানোর খবর শোনা গেলেও ফিক্সিং নিয়ে খুব একটা মাতামাতি কখনো হয়নি। যতটা ক্রিকেট নিয়ে হচ্ছে। প্রতিবেশী দেশের ফুটবলারদের এমন কাণ্ডে দেশের ফুটবল অঙ্গনও চিন্তিত হয়ে পড়েছে।

চিন্তার কারণে বাড়ছে অধিনায়ক মামুনুলের কথায়। তিনি বলছেন, প্রায় ছয় মাস আগে তার ফোনে একটা মেসেজ আসে। মেসেজে জানতে চাওয়া হয়, তিনি ফিক্সিং করতে রাজি কি না। অপর প্রান্তের নম্বরটি দেশের বাইরের বলে জানান তিনি।

মামুনুল ব্যাপারটিকে মজা হিসেবে ধরে নিয়েছিলেন। ভেবেছিলেন, পুনরায় যদি এমন হয় তবে বাফুফেকে অবহিত করবেন।

মামুনুল বলেন, এমন ঘটনা আগেও ঘটেছে। ২০১০ সালে শ্রীলঙ্কা সফরের সময় সাবেক অধিনায়ক আমিনুল হকও নাকি এমন একটা ফোনকল পেয়েছিলেন।

বাফুফে বলছে, মামুনুলের বিষয়টি জানানো উচিত ছিল।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের (বাফুফে) সহসভাপতি বাদল রায় বলেন, ‘আমিনুলের বিষয়টি শুনেছিলাম। তবে মামুনুলের বিষয়টি সম্পর্কে কিছু জানি না। তাছাড়া আমরা বিশ্বাস করি, বাংলাদেশ ফুটবলে এমন কোনো ঘটনা ঘটেনি। ঘটবেও না।’

বিষয়টি বাফুফে তদন্ত করে দেখবে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে বাদল বলেন, ‘সুনির্দিষ্ট অভিযোগ পেলে অবশ্যই তদন্ত করা হবে। তবে অভিযোগটি হতে হবে বস্তুনিষ্ঠ। শুধু বললেই হবে না।’ ঢাকাটাইমস