মেইন ম্যেনু

বাংলাদেশ সীমান্তে আরো বেড়া দিতে বিএসএফ’এর প্রস্তাব

বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড রোধ ও পশু চোরাচালান বন্ধ করতে ভারতের সীমান্তরক্ষী প্রহরীরা পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সরকারের কাছে একটি বিস্তারিত প্রস্তাবনা জমা দিয়েছেন। প্রস্তাবনায় অত্যন্ত স্পর্শকাতর ৮১.৭ কিলোমিটার সীমান্তে বেড়ার জন্য ভূমির প্রয়োজন বলে রাজ্য সরকারকে জানানো হয়। গত কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশ সীমান্তে বেড়া দেওয়ার দাবি উঠেছে। তবে ঢাকায় সন্ত্রাসী হামলার পরে এই সীমান্তে বেড়ার দাবি আরো জোড়াল হয়।

বিএসএফের ইন্সপেক্টর জেনারেল সন্দ্বীপ সোলাঙ্কি বলেন, জরিপ ও ভূমি নির্দিষ্ট করতে আমরা ২০০৯ থেকে কাজ করছি। তবে সম্প্রতি রাজ্য সরকার আমাদের কাছে সাউথ বেঙ্গল ফ্রন্টিয়ারের ভূমির পরিমাণ জানতে চায়। আমাদের কি কি লাগবে তা বলেছি। ভূমি ও জরিপ ছাড়াও বেড়ার কাজে আমাদের মৌলিক আরো যা যা প্রয়োজন বিস্তারিত জানিয়েছি। বাংলাদেশ সীমান্তের উত্তর ২৪ পরগোনা, নদীয়া ও মুর্শিদাবাদ জেলার ৮১.৭ কিলোমিটার এলাকায় কোনো বিলম্ব ছাড়াই বেড়া দেওয়া প্রয়োজন বলে জানান সন্দ্বীপ সোলাঙ্কি।

বাংলাদেশ ও পশ্চিমবঙ্গের মধ্যে ২,২১৬.৭ কিলোমিটার সীমান্ত রয়েছে। সাউথ বেঙ্গল ফ্রন্টিয়ারের ৯১৫ কিলোমিটার সীমান্তের মধ্যে মাত্র ৩৭ কিলোমিটারে বেড়া রয়েছে। ৮১.৭ কিলোমিটার সীমান্তে জরুরিভাবে বেড়া দেওয়ার প্রয়োজন। কারণ এই এলাকাটি অত্যন্ত স্পর্শকাতর। এই সীমান্তে বেড়া দিলে সীমান্তে প্রহরা দিতে সহজ হবে বলে জানান বিএসএফের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা।

বিএসএফের একটি সূত্র জানায়, প্রস্তাবনাটি স্টেট চিফ সেক্রেটারি ও হোম সেক্রেটারির কাছে জমা দেওয়া হয়েছে। ভূমি জরিপের কাজও চলছে বলে জানানো হয়েছে।

এদিকে স্টেট হোম ডিপার্টমেন্টের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা জানিয়েছেন, আমরা বিএসএফের কাছ থেকে একটি প্রতিবেদন গ্রহণ করেছি। পার্সেজ কমিটির কাছে এটি পাঠানো হবে। ভূমি অধিগ্রহণের জন্য বিএসএফকে তহবিল দেওয়া হবে। এবং বিএসএফের অধীনে এটি নিবন্ধিত হবে। শিগগরই এই প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে হোম ডিপার্টমেন্টের এই কর্মকর্তা।

সূত্র: দ্য এশিয়ান এজ ও দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস