মেইন ম্যেনু

বাকৃবি শিক্ষার্থী ছুরিকাহত : প্রতিবাদে মিছিল ও মানববন্ধন

মো শাহীন সরদার, বাকৃবি প্রতিনিধি: বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) রেজওয়ান রাশিক নামের এক শিক্ষার্থীকে ছুরিকাহত করেছে ছিনতাইকারীরা। শুক্রবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে ক্যাম্পাসের ফিশ মিউজিয়ামের সামনে এ ঘটনা ঘটে। পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে ভর্তি করা হয়েছে। এ নিয়ে ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীদের মধ্যে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে।

জানা গেছে, রেজওয়ান রাশিক কৃষি প্রকৌশল ও কারিগরি অনুষদের (ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং) তৃতীয় বর্ষের ছাত্র । সে আবাসিক ফজলুল হক হলের ছাত্র।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাশিক তার বান্ধবীসহ ক্যাম্পাসের ভিতর ফিশ মিউজিয়ামে ঘুরতে যায়। সন্ধ্যা পৌনে ৭টার দিকে ফেরার পথে ৩/৪জন ছিনতাইকারী তাদের পথ আটকিয়ে তাদের কাছ থেকে ৩টি মোবাইল, ম্যানিব্যাগ ( আনুমানিক মূল্য ৩০হাজার টাকা) নিয়ে হাতাহাতির এক পর্যায়ে তাকে ছুরি মেরে পালিয়ে যায়। পরে আশেপাশের লোকজনের সহায়তায় তাকে তাৎক্ষণিক বিশ্ববিদ্যালয় স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্রে নেওয়া হয়। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় আম্বুলেন্স যোগে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে পাঠিয়ে দেয় কতব্যরত চিকিৎসক।

এদিকে ক্যাম্পাসে নিñিদ্র নিরাপত্তা এবং ছিনতাইকারীদের গ্রেফতার করে সর্বোচ্চ শাস্তির দাবীতে আলাদা আলাদা মিছিল ও মানববন্ধন করেছে বাকৃবি শাখা ছাত্রলীগ, প্রগতিশীল ছাত্রজোট ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা। শিক্ষার্থীরা জানায় ক্যাম্পাসে আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। এরকম ঘটনা প্রায়ই ঘটতে দেখা যায়। একই ঘটনার পুরাবৃত্তির কারণে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের অবহেলাকেই দায়ী করেন তারা।

এ সম্পর্কে প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা মহিউদ্দিন হাওলাদার জানান, ‘ঘটনা শোনার পর পরই ঘটনাস্থলে যাই। পরে তিনি নিজেই বাদী হয়ে ময়মনসিংহ কোতায়ালি থানায় একটি ছিনতাই অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করেন।

থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কামরুল ইসলাম মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ঘটনার পরেই ঘটনাস্থলের আশপাশ থেকে চার জন সন্দেহভাজন বখাটেকে আটক করা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড.এ.কে.এম জাকির হোসেন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন জায়গায় সীমানা প্রাচীর নেই। ক্যাম্পাসের ভিতরে বিভিন্ন এলাকায় যাতায়াতের রাস্তা থাকায় বহিরাগতরা প্রবেশ করে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সতর্ক থাকা সত্ত্বেও অনাকাঙ্খিত ঘটনাটি ঘটে। জড়িতদের ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে ।