মেইন ম্যেনু

এশিয়া কাপ: বাংলাদেশ বনাম শ্রীলংকা

বাঘের আক্রমনে ক্ষত-বিক্ষত সিংহ

শ্রীলংকাকে ২৩ রানে হারিয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালে খেলার সম্ভাবনা বাঁচিয়ে রেখেছে বাংলাদেশ। রবিবার মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে ৭ উইকেটে ১৪৭ রান সংগ্রহ করে মাশরাফিবাহিনী। জবাবে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ১২৪ রান সংগ্রহ করতে পেরেছে শ্রীলংকা। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় ম্যাচটি শুরু হয়।

টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভাল হয়নি স্বাগতিকদের, ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই ওপেনার মোহাম্মদ মিথুন শ্রীলংকান অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজের এলবিডব্লিউ এর শিকার হন দলীয় শূন্য রানে। পরে দ্বিতীয় ওভারের তৃতীয় বলে আরেক ওপেনার সৌম্য সরকারও ব্যক্তিগত শুন্য রানে আউট হয়ে সাজঘরে ফিরে যান। কুলাসেকারার বলে ম্যাথুজের ক্যাচে পরিণত হন তিনি, দলীয় সংগ্রহ তখন ২ ওভারে২ উইকেট হারিয়ে ২ রান।

শুরুতেই বিপর্যস্ত দলকে এগিয়ে নিতে সাব্বির রহমান ও মুশফিকুর রহিম জুটি বাঁধলেও তারা বেশিদূর এগুতো পারেননি। ব্যাক্তিগত ৪ রানে মুশফিক রান আউট হয়েছেন ইনিংসের ৪.৫ ওভারে। তবে ২৭ রানেই ৩ উইকেট হারানো বাংলাদেশকে লড়াই করার মত পুঁজি এনে দেন সাব্বির রহমান। টি২০ ক্রিকেটের মেজাজটা যে বেশ ভালই রপ্ত করেছেন তিনি তা আরেকবার শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে প্রমাণ করলেন। ইনিংসের শুরু থেকেই যখন এক প্রান্তে বাংলাদেশী ব্যাটসম্যানদের আসা-যাওয়ার মিছিল, তখন অপর প্রান্তে সাব্বিরের ব্যাট উজ্জ্বল। লঙ্কান বোলারদের ওপর রীতিমতো তাণ্ডবই চালিয়েছেন বাংলাদেশের এই তরুণ ক্রিকেটার। ১৬তম ওভারের শেষ বলে চামিরার বলে জয়াসুরিয়ার ক্যাচে পরিণত হওয়ার আগে তিনি ৫৪ বলে ৮০ রান করেছেন। ১০ চার ও ৩ ছক্কায় ইনিংসটি সাজিয়েছেন তিনি।

এদিকে সাব্বিরের বিদায়ের পর কিছুটা ঝড়ো ব্যাটিং করছিলেন সাকিব আল হাসান। কিন্তু ১৭.২ ওভারে চামিরার বলে চান্দিমালের ক্যাচে পরিণত হন তিনি। ৩৪ বলে ৩ চারে ৩২ রান সংগ্রহ করেছেন তিনি। শেষদিকে মাহমুদুল্লাহ এর ১২ বলে ২৩ রানের ঝড়ো ইনিংসে বাংলাদেশ নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৪৭ রান সংগ্রহ করে।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শ্রীলংকার শুরুটাই ছিল এলোমেলো। কিন্তু ইনিংসের দ্বিতীয় বলেই তাসকিন আহমেদের বলে লংকান ওপেনার চান্দিমাল ক্যাচ তুললেও তা ধরতে পারেননি সৌম্য সরকার। তবে চতুর্থ ওভারে সেই ভুল আর করেননি সৌম্য। সাকিব আল হাসানের প্রথম বলেই তিলকরত্নে দিলশানের (১২ রান) ক্যাচ লুফে নেন তিনি। কিন্তু সিহান জয়াসুরিয়াকে সঙ্গে নিয়ে ম্যাচ শ্রীলংকার নিয়ন্ত্রণে রেখেছিলেন ওই চান্দিমাল। তবে তাদের ৫৬ রানের জুটি ভেঙ্গে বাংলাদেশ শিবিরে স্বস্তি ফিরিয়ে আনেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। ১১তম ওভারের শেষ বলে ব্যাক্তিগত ৩৭ রানে তাসকিনের হাতেই তালুবন্দি হন চান্দিমাল।

পরের ওভারেই আবার শ্রীলংকার ইনিংসে আঘাত হানেন সাকিব আল হাসান। ১১.২ ওভারে উইকেটকিপার নুরুল হাসানের স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার হন জয়াসুরিয়া (২৬ রান), ১২.২ ওভার শেষে ৩ উইকেট হারিয়ে ৮০ রান সংগ্রহ করেছে শ্রীলংকা। ১৩.২ ওভারে থিসেরা পেরেরাকে এলবিডব্লিউ করে ম্যাচটি অনেকটাই বাংলাদেশের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে এসেছেন কাটার মাস্টার মুস্তাফিজ। আর ১৫তম ওভারে এসে শ্রীলংকাকে আরও চেপে ধরেন টাইগার দলপতি মাশরাফি। সারিওয়ার্ধানেকে সাব্বিরের ক্যাচ বানান তিনি। লংকানদের সংগ্রহ ১৬.২ ওভারে ৫ উইকেট হারিয়ে ১০০ রান।

এই ম্যাচেিইনজুরির কারণে দলের বাইরে রয়েছেন শ্রীলঙ্কার নিয়মিত অধিনায়ক লাসিথ মালিঙ্গা। তার পরিবর্তে শ্রীলঙ্কাকে এই ম্যাচে নেতৃত্ব দিচ্ছেন সাবেক অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুস। আর মালিঙ্গার পরিবর্তে দলে এসেছেন থিসারা পেরেরা। অন্যদিকে আগের ম্যাচের স্কোয়াড অপরিবর্তিত রেখেই মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ।