মেইন ম্যেনু

বাজেটের মাঝেই বদলে ফেলুন ঘরদোরের চেহারা

অনেকদিন ধরে ঘরদোরের সেই এক চেহারা দেখে দেখে ক্লান্ত হয়ে গেছেন আপনি। ভাবছেন বড়সড় একটা বদল দরকার এবার। কিন্তু তাতে খুব বড় খরচের ধাক্কা আসবে ভেবেই দমে যাচ্ছেন। জেনে রাখুন, সামান্য কিছু কৌশলের সাহায্য নিয়েই আপনি এই কাজটা করে ফেলতে পারবেন নির্বিঘ্নে এবং বলাই বাহুল্য যে একদম অল্প খরচে। আর এজন্য দরকার কেবল সঠিক পরিকল্পনার।

১) যেকোন কাজ যখন সুপরিকল্পিত হয়, তাতে সফল হবার সম্ভাবনা বেশি থাকে। তাই শুরুতেই একদম ছক কষে সব পরিকল্পনা সাজিয়ে নিন, তারপর নেমে পড়ুন ইচ্ছে মতন ঘর সাজাতে।

২) চটজলদি কিছু করে ফেলার কথা ভাববেন না। ঘরের পুরনো চেহারা অনেকটা বদলে দিতে চলেছেন, সময় নিন কয়েকটা মাস। প্রতি মাসে কিছু টাকা বরাদ্দ করুন এই সংক্রান্ত খরচের খাতায়। তারপর তালিকা করে কিনতে শুরু করুন আপনার ঘরদোরের জিনিষপাতি।

৩) বাসায় যাবতীয় যা ঝুড়ি, বাক্স, ডিব্বা আছে ওসব বদলে ফেলুন এবার। ড্রেসিং টেবিলে ব্যান্ড, দুল, চুড়ি রাখার ঝুড়িটা হোক আপনার সৌখিনতার পরিচায়ক। বাঁশ বা কাঠের ঝুড়ি,বাক্স বেছে নিতে পারেন এজন্য।

৪) বেসিনের তাকে রাখা বাক্সটাও বদলে অন্য রঙের অন্য কোন আকৃতির নতুন বাক্স আনুন। রান্নাঘরের মসলার ডিব্বাগুলিও নতুন কিনে নিন এইবারে। বাজারে খুব সুন্দর মসলাদানির সেট পাওয়া যায়। পছন্দ করে নিতে পারবেন অনেক রকম নকশা থেকে। আপনার ঘরের পুরনো মলিন ভাব কমে আসবে খানিকটা।

৫) শোবার ঘরের জন্য কিনে নিন একটি রঙচঙা মাদুর। সবসময় না হোক, মাঝেমধ্যে বিছিয়ে দিলেই আপনার ঘরে নতুন রঙের ছোঁয়া লাগবে। আরেকটি মাদুর চাইলে আপনার একফালি বারান্দাতেও পেতে রাখতে পারেন।

৬) নতুন করে একটা চল এসেছে, কাগজের প্রজাপতি বানিয়ে দেয়ালে লাগানোর। খুবই সামান্য কাজ, কিন্তু ঘরসজ্জায় বেশ প্রভাবক। মনমতো রঙের কাগজ বেছে নিন, প্রজাপতি বা অন্যকিছু বানাতে চাইলে বানিয়ে নিন, তারপর বসিয়ে দেবেন দেয়ালজুড়ে। আপনার ঘর প্রাণবন্ত হয়ে উঠবে এই একটা কৌশলেই। কেউ চাইলে ওয়ালম্যাট বেছে নিতে পারেন যদি লাগানোর সুবিধা থাকে। বিভিন্ন নকশার ম্যাটগুলো যেকোন ঘরের মনমরা ভাব ঢেকে দেয় সহজেই।

৭) কোন মাসে খরচের সবটা তৈজসপত্রে ব্যয় করতে পারেন। নিত্য ব্যবহারের থালাবাটি সব বদলে নিলেন একবারে। আগেরবারের চেয়ে সম্পূর্ণ আলাদা কিছু জিনিষ বেছে নিন, রঙে আর উপাদানে ভিন্নতা রাখুন যাতে আপনার চোখেই নতুনত্ব ধরা পড়ে।

৮) ক্যামেরা বা সেলফোনের মেমোরিতে ছবি আটকে না রেখে এবার কিছু প্রিন্ট করতে দিয়ে দিন। এই ফাঁকে কয়েকটি ফটোফ্রেম কিনে আনুন পছন্দ মতন। হালকা উপাদানে তৈরি চমৎকার সব ফটোফ্রেম পাওয়া যায় বাজারে। কাগজ অথবা বাঁশের তৈরি ফ্রেমগুলি কেবল ছবি আটকানোর মাধ্যম নয়, ঘর সাজানোর উপকরন হিসেবেও মানিয়ে যায়। এবার আপনার সুন্দর মুহূর্তগুলি ফ্রেমবন্দী করে সাজিয়ে দিন ঘরের দেয়ালে দেয়ালে।

৯) ফুল বা গাছের কখনোই কোন বিকল্প নেই। অন্তত কয়েকটি মানিপ্ল্যান্টের চিহ্ন থাকুক জানালার তাকে বা টেবিলে। সম্ভব হলে বারান্দায় টবে রাখুন গোলাপ, নয়নতারা বা বেলিফুল। গাছের চেয়ে বেশি প্রশান্তি আর কিছুতে মিলবে না, তাই চেষ্টা করুন সামান্য কিছু হলেও গাছ ঘরে রাখতে।

এমন একটু আধটু করেই আপনার অন্দরমহল পুরো নতুন রূপে ফুটে উঠতে থাকবে। কেবল আপনার পরিকল্পনা করে কাজে নামবার দেরি!