মেইন ম্যেনু

‘বাড়িতে নিয়ে গিয়ে আমাকে নগ্ন করেছিলেন প্রথমে’

যদি ভেবে থাকেন, দিনরাত যৌনতাই একমাত্র অত্যাচার, তা হলে নির্ঘাত ভুল করবেন। যৌনকর্মীদের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, তাঁদের অভিজ্ঞতা সম্পর্কে। শুনে নিন…

লন্ডনের এক যৌনকর্মী বলছেন, ‘বিকৃত কাম কত ধরনের হয়, তা এই পেশায় থাকলে বেশ বোঝা যায়। এক ব্যক্তি আমার কাছে আসেন। একটি কাচের গ্লাসে আমাকে প্রস্রাব করতে বলেন। এ জন্য ২০০ ডলার দিতে প্রস্তুত ছিলেন তিনি।’কী করেছিলেন ওই যৌনকর্মী? যে স্ট্রিপ বার-এ তিনি কাজ করতেন, তার বাউন্সারের কাছে গ্লাসটি নিয়ে গিয়েছিলেন ওই যৌনকর্মী। তাঁকে দিয়ে প্রস্রাব করিয়েছিলেন এবং সেই প্রস্রাব নিয়ে গিয়েছিলেন সেই ব্যক্তির কাছে। এর পরের ঘটনা আরও অবাক করে দেওয়ার মতো। ওই যৌনকর্মী বলছেন, ‘উনি একবার শুঁকেই বলে দিলেন, ছেলেদের প্রস্রাব। তার পরে উনি আর এদিকে আসেননি।’ সুত্র-এবেলা

আর একজনের বয়ান, ‘এক ক্লায়েন্টের দাবি ছিল, রাতভর ওঁকে বাথটাবে চুবিয়ে অজ্ঞান করতে হবে। তার পরে জ্ঞান ফেরাতে হবে, এবং ফের অজ্ঞান করতে হবে।’

তৃতীয়জনের বক্তব্য, একজন তাঁর পায়ের মোজা খুলিয়ে দাঁত যেভাবে পরীক্ষা করে, সেভাবে রাতভর তাঁর পায়ের আঙুল পরীক্ষা করে গিয়েছিলেন। আর একজন রাতভর যৌনকর্মীকে দিয়ে ঘর পরিষ্কার করিয়েছিলেন।

তবে অত্যাচার কেমন মাত্রা ছাড়ায় তা বোঝা যাবে এই বয়ানটি শুনলে। এক যৌনকর্মী বলেছেন, ‘বাড়িতে নিয়ে গিয়ে আমাকে নগ্ন করেছিলেন প্রথমে। তার পরে দেওয়ালের দিকে মুখ করিয়ে দাঁড় করানো হয়।’ অতঃপর? রাতভর ‘ইউলিসিস’ বইটি পড়ে শোনাতে হয়েছে ক্লায়েন্টকে।

এক যৌনকর্মী বলছেন, একবার কয়েকজন যুবক তাঁর কাছে এসেছিলেন অদ্ভুত আবদার নিয়ে। কনুই ঘষে দিতে হবে! একজন আবার যৌনকর্মীর কাছে আসতেন স্রেফ অণ্ডকোষে লাথি খাওয়ার জন্য। ৫ থেকে ১০টি লাথি খেয়ে চলে যেতেন।