মেইন ম্যেনু

বাতিল হলো অগ্রণী ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা

টানা সমালোচনার পরে অবশেষে বাতিল করা হলো অগ্রণী ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা। শুক্রবার (১৯ মে) সকাল পর্বের পরীক্ষা অনুষ্টিত হওয়ার পরে প্রশ্নপত্র ফাঁসের তথ্য বেরিয়ে আসে। তখনই বিকেল বেলার পরীক্ষা স্থগিত করে কর্তৃপক্ষ। সন্ধ্যায় জানানো হলা, শুক্রবারে বিকেল বেলার অনুষ্টিতব্য পরীক্ষাটি বাতিল করা হয়েছে।

অগ্রণী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার পদে নিয়োগের বাছাইপর্বের শুক্রবার বিকেল ভাগের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছিল। প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল কর্তৃপক্ষ। সকাল ১০টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত এই পদে নিয়োগের বাছাইপর্বের সকাল ভাগের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ৩টায় আরেক ভাগের পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল।

অগ্রণী ব্যাংকের এই নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস হয়েছে বলে বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত থেকেই অভিযোগ পাওয়া যায়। সকাল ভাগের পরীক্ষা শেষে মূল প্রশ্নপত্রের সঙ্গে ফাঁস হওয়া প্রশ্নপত্রের মিল থাকার কথা জানান পরীক্ষার্থীরা।

পরীক্ষার্থীদের ভাষ্য, গতকাল দিবাগত রাত থেকে তারা হাতে লেখা ও ছাপা প্রশ্নপত্র দেখেছেন। আবার শুধু উত্তরও দেখা গেছে। বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহার করে পরীক্ষার্থীরা নিজেদের মধ্যে এই প্রশ্নপত্র ও উত্তর বিনিময় করেন। রাষ্ট্রায়ত্ত সব ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষা ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির মাধ্যমে হয়। কমিটি সূত্রে জানা গেছে, নিয়োগ পরীক্ষার বিষয়ে তারা সাচিবিক দায়িত্ব পালন করে। পরীক্ষা নেয়ার জন্য তারা দরপত্র দেয়। অগ্রণী ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার পদের নিয়োগ পরীক্ষার দরপত্র পেয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং ও ইনস্যুরেন্স বিভাগ।

প্রশ্নপত্র ফাঁস হওয়ার অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে বিকেল ভাগের পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছিল। আর সকালে হয়ে যাওয়া পরীক্ষার বিষয়ে তারা এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেননি।






মন্তব্য চালু নেই