মেইন ম্যেনু

বার কাউন্সিলে নজিরবিহীন কারচুপির অভিযোগ খোকনের!

আইনজীবীদের নিয়ন্ত্রক ও তদারক সংস্থা বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের নির্বাচনে সরকার সমর্থক প্যানেলের বিপুল বিজয় হয়েছে। আর ভরাডুবি হয়েছে বিএনপিপন্থিদের। ১৪টি সদস্য পদের ১০টিতে জয় লাভ করেছেন সরকার সমর্থক আইনজীবীরা এবং বাকি চারটিতে জয় পেয়েছেন বিএনপিপন্থি আইনজীবীরা।

দুই পক্ষের নির্বাচনী এজেন্টদের কাছে আসা ভোটের হিসাব অনুযায়ী এই ফলাফল এলেও এখন পর্যন্ত এই নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক কোনো ফলাফল ঘোষণা করা হয়নি।

আনুষ্ঠানিক ফলাফল ঘোষণা করা হবে আগামীকাল সোমবার। বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ও অ্যাটর্নি জেনারেল এই ফল ঘোষণা করবেন।

সরকার সমর্থদের এই নিরস্কুশ জয়কে ভোট জালিয়াতির জয় হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন বিএনপিপন্থি নীল প্যানেলের আইনজীবী ও সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন।

তিনি বলেন, ভোটার তালিকা হালনাগাদের নামে শত শত ভোটারকে ভোট দেয়া থেকে বঞ্চিত করা হয়েছে। এ বছর অনেক ভোটারই ভোট দিতে পারেননি। কেন কী কারণে তাদের তালিকা থেকে বাদ দেয়া হয়েছে এর সঠিক কোনো ব্যাখ্যাও দেয়া হয়নি।

এবার বার কাউন্সিল নির্বাচনে যে কারচুপি হয়েছে তা বার কাউন্সিলের ইতিহাসে নজিরবিহীন বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

ভোটে কারসাজি হয়েছে এমন কোনো অভিযোগ নির্বাচন কমিশনে দেয়া হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, এখনও আনুষ্ঠানিক ফল ঘোষণা করা হয়নি। আনুষ্ঠানিক ফল ঘোষণার পরই কমিশনকে তথ্যসহ অভিযোগ জানানো হবে বলেও জানান বিএনপিপন্থি এই আইনজীবী।

অন্যদিকে সরকার সমর্থক আইনজীবীরা দাবি করছেন সম্মিলিতভাবে প্যানেল ঘোষণা করার কারণেই বিজয় লাভ করা সম্ভব হয়েছে। তবে আনুষ্ঠানিকভাবে ফল ঘোষণা না হওয়ায় এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি কেউই।

সাধারণ ও গ্রুপ আসন মিলে ১৪টির মধ্যে ১০টিতে জয় লাভ করায় দীর্ঘদিন পর আইনজীবীদের সনদ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান ও আইন পেশার সর্বোচ্চ সংস্থা বাংলাদেশ বার কাউন্সিলের কর্তৃত্ব ফিরে পেতে যাচ্ছে আওয়ামীপন্থি আইনজীবী প্যানেল সম্মিলিত পরিষদ।

বার কাউন্সিলের ১৪টি সদস্য পদের বিপরীতে এবার চারটি প্যানেল থেকে মোট ৬১ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন।

এর মধ্যে সরকার সমর্থক সাদা প্যানেল থেকে আবদুল বাসেত মজুমদার, এম আমীর-উল ইসলাম, আবদুল মতিন খসরু, জেড আই খান পান্না, এ ছাড়া সাতটি গ্রুপ আসনের মধ্যে সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের (সাদা প্যানেল) প্রার্থীরা ছয়টিতেই সংখ্যাগরিষ্ঠ্যতার দিকে এগিয়ে আছেন। তারা হলেন- এ-গ্রুপ থেকে কাজী নজিবুল্লাহ হিরু, বি-গ্রুপ থেকে এইচ আর জাহিদ আনোয়ার, সি-গ্রুপ থেকে ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী, ই-গ্রুপ থেকে পারভেজ আলম খান, এফ-গ্রুপ থেকে মো. ইয়াহিয়া ও জি-গ্রুপ থেকে মো. রেজাউল করিম। একমাত্র ডি-গ্রুপ থেকে জাতীয়তাবাদী ঐক্য পরিষদের (নীল প্যানেল) প্রার্থী কাইমুল হক জয় লাভ করতে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

বুধবার (২৬ আগস্ট) সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত দেশের ৭৮টি ভোটকেন্দ্রে একযোগে ভোটগ্রহণ করা হয়।

প্রতি তিন বছর অন্তর অন্তর বার কাউন্সিল নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বার কাউন্সিল ১৫ জন সদস্যের সমন্বয়ে পরিচালিত হয়ে থাকে। এর মধ্যে রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল পদাধিকার বলে এর চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। আর বাকি ১৪ জন আইনজীবীদের সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হয়ে থাকেন। এই ১৪ জনের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে একজন ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। এবার বার কাউন্সিল নির্বাচনে মোট ভোটার ছিলেন ৪৩ হাজার ৩০২ জন।ঢাকাটাইমস