মেইন ম্যেনু

বার কাউন্সিল নির্বাচন: আত্মবিশ্বাসী দুই পক্ষই

কয়েক দফা পেছানোর পর অবশেষে বুধবার হতে যাচ্ছে আইনজীবীদের সনদ প্রদানকারী প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ বার কাউন্সিলে নির্বাচন। ভোটের বাকি আর দুদিন। তাই শেষ মুহূর্তের প্রচারে ব্যস্ত প্রার্থীরা।

এই নির্বাচনে বিজয়ের ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে চায় জাতীয়তাবাদী আইনজীবীরা। আর যেকোনো মূল্যে উদ্ধারে মরিয়া আওয়ামী লীগপন্থিরা।

প্রথমে গত ২০ মে ভোট হওয়ার কথা থাকলেও ভোটার তালিকায় কারচুপির অভিযোগ উঠায় তা পিছিয়ে ২৭ মে করা হয়। হাইকোর্টের এক আইনজীবী নির্বাচনের তফসিলের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট করলে পরে তিন মাসের জন্য স্থগিত হয়ে যায় নির্বাচন।

হাইকোর্টের এ আদেশের স্থগিতাদেশ চেয়ে বার কাউন্সিল থেকে আপিল করলে ভোটার তালিকা হালনাগাদের শর্তে আপিল বিভাগ প্রথমে ১৩ আগস্ট ভোটের তারিখ ঠিক করে দেন। পরে অন্য একটি আবেদনের পর ২৬ আগস্ট তারিখ ঠিক করে দেয় আদালত।

সংশোধিত ভোটার তালিকা অনুযায়ী সারা দেশের ৪৩ হাজার ৩০২ জন আইনজীবী তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারবেন এ নির্বাচনে। প্রতি তিন বছর অন্তর অন্তর বার কাউন্সিল নির্বাচন হয়। বার কাউন্সিল ১৫ জন সদস্যের সমন্বয়ে পরিচালিত হয়ে থাকে। এর মধ্যে রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল পদাধিকার বলে এর চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেন। আর বাকি ১৪ জন সরাসরি ভোটে নির্বাচিত হয়ে থাকেন। এই ১৪ জনের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের মতামতের ভিত্তিতে একজন ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।

এবারের নির্বাচনে যেকোনো মূল্যে বিজয় ছিনিয়ে আনতে ঐক্যবদ্ধ প্রচারণায় নেমেছে আওয়ামীপন্থি আইনজীবীরা। এজন্য নানা পরিকল্পনা বিচার-বিশ্লেষণ করে প্রচার চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। ভোটারদের কাছে ভোট চাইতে সম্মিলিত পরিষদ প্যানেল চষে বেড়াচ্ছে দেশের সব বার।

অন্যদিকে বিজয়ের ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে নতুন রূপে প্রচারণায় নেমেছে জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল।

সাধারণ আইনজীবীরা মনে করছেন, এবারের নির্বাচনে দুটি প্যানেলেই জ্যেষ্ঠ আইনজীবীদের অগ্রাধিকার দিয়ে প্রার্থী করা হয়েছে। যাতে যেকোনো মূল্যে বিজয় নিশ্চিত করা যায়।

আইনজীবীদের প্রচারণার দিকে তাকালেও সহজে অনুমেয় করা যায় যে, দুই পক্ষের লড়াই বেশ জমে উঠেছে।

সম্মিলিত আইনজীবী পরিষদের সদস্য ও সাধারণ আসনের প্রার্থী শ ম রেজাউল করিম বলেন,‘ভোটারদের বিপুল সাড়া পাচ্ছি,আশা করছি ফুল প্যানেলে আমাদের বিজয়ী হবে’। তিনি বলেন, ‘ঢাকার বাইরে বিভাগীয়সহ প্রায় সব জেলাতে প্রচারণা শেষ করেছি। বাকি সময়টুকু ঢাকার মধ্যে প্রচার চালিয়ে যাবো। যেটুকু প্রচারণায় চালিয়েছি তাতে দেখেছি ভোটারদের মধ্যে অনেক আনন্দ উদ্দীপনা রয়েছে। আশা করি ভোটাররা পরিবর্তনের পক্ষে ভোট দেবেন’।

বিএনপিপন্থি ঐক্য প্যানেলের প্রার্থী মাহবুব উদ্দিন খোকন বলেন, ‘ভোটারদের যে সাড়া পাচ্ছি তাতে আশা করছি এ প্যানেলের বেশিরভাগ প্রার্থী বিপুল ভোটে জিতবে’।

এবারের বার কাউন্সিল নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন সমন্বয় পরিষদের প্যানেলে রয়েছেন এম আমীর-উল-ইসলাম, আবদুল বাসেত মজুমদার, রোকন উদ্দিন মাহমুদ, আবদুল মতিন খসরু, পরিমল চন্দ্র গুহ, জেড আই খান পান্না ও শ ম রেজাউল করিম।

গ্রুপ অনুযায়ী রয়েছেন গ্রুপ ‘এ’ ঢাকা আসনে কাজী নজিবুল্লাহ হিরু, গ্রুপ বি আসনে এইচ আর জাহিদ আনোয়ার, গ্রুপ ‘সি’ আসনে ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী, গ্রুপ ‘ডি’ আসনে সরোয়ার আহম্মেদ চৌধুরী আবদাল, গ্রুপ ‘ই’ আসনে পারভেজ আলম খান, গ্রুপ ‘এফ’ আসনে মো. ইয়াহিয়া ও গ্রুপ ‘জি’ আসনে রেজাউল করিম।

অন্যদিকে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেলে রয়েছেন খন্দকার মাহবুব হোসেন, এজে মোহাম্মদ আলী, এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন, সানাউল্লাহ মিয়া, বদরুদ্দোজা বাদল, বোরহান উদ্দিন ও মহসিন মিয়া।

গ্রুপ ‘এ’ আসনে রয়েছেন গোলাম মোস্তফা খান, ‘বি’ আসনে মোহাম্মদ আবদুল বাকী মিয়া, ‘সি’ আসনে কবির চৌধুরী,‘ডি’ আসনে কাইমুল হক,‘ই’ আসনে আবদুল মালেক,‘এফ’ আসনে মোহাম্মদ ইসহাক ও ‘জি’ আসনে একেএম হাফিজুর রহমান।

সম্মিলিত আইনজীবী সমন্বয় পরিষদ ও জাতীয়তাবাদী আইনজীবী ঐক্য প্যানেল ছাড়াও ঐক্যবদ্ধ আইনজীবী সমাজ নামে আরেকটি প্যানেল দেয়া হয়েছে। এ প্যানেলে রয়েছেন সুব্রত চৌধুরী, শাহ মো. খসরুজ্জামান, একেএম জগলুল হায়দার আফ্রিক, সরওয়ার ই-দীন, মো. হেলাল উদ্দিন, আবদুল মোমেন চৌধুরী, জহিরুল ইসলাম।

তিন প্যানেলের বাইরে যারা আছেন তাদের মধ্যে সাধারণ আসনে রয়েছেন মো. ইস্রাফিল, ইউনুস আলী আকন্দ, নাসির উদ্দিন আহম্মেদ অসীম, আবুল কালাম আজাদ, আবুল হোসেন, এনামুল কবির হাওলাদার, দেলোয়ার হোসেন মল্লিক, মাহবুব মিয়া, শওকত হায়াত, সামছুল হক, সুলতান এ সবুর।

আগামী ২৬ আগস্ট সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি ভবনে স্থাপিত ভোটকেন্দ্র,দেশের জেলা সদরের সব দেওয়ানী আদালত প্রাঙ্গণে স্থাপিত ভোটকেন্দ্র এবং বাজিতপুর, ঈশ্বরগঞ্জ, দুর্গাপুর, ভাঙ্গা, চিকন্দি, পটিয়া, সাতকানিয়া, ফটিকছড়ি, সন্দ্বীপ, হাতিয়া, নবীনগর ও পাইকগাছাসহ দেশের ১২ উপজেলা পর্যায়ে দেওয়ানি আদালত অঙ্গনের ভোটকেন্দ্রে এ ভোটগ্রহণ হবে।