মেইন ম্যেনু

বিএনপির শীর্ষ নেতারা যে যেখানে ঈদ করবেন

আর কয়েকদিন পরেই পবিত্র ঈদুল ফিতর। অন্যান্য শ্রেণী-পেশার মানুষের মত রাজনীতিবিদরাও পালন করবেন ধর্মীয় এ খুশির দিনটিকে। কেউ ঢাকায় অথবা কেউ গ্রামের বাড়িতে ঈদ করবেন। তবে দেশের অন্যতম বৃহত্তম রাজনৈতিক দল বিএনপির অধিকাংশ সিনিয়র নেতা ঢাকায় ঈদ করবেন বলে জানা গেছে।

জানা যায়, দলের সিনিয়র অনেক নেতা ঢাকায় ঈদ করলেও দলের মধ্যম সারির নেতাদের অনেকেই ঈদে নিজ নিজ এলাকায় যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন। কেউ কেউ ইতিমধ্যে চলেও গেছেন। এ ছাড়া বিএনপির বেশ ক’জন সিনিয়র নেতার ঈদ কাটবে বিদেশে।

জানা যায়, বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ঈদ করবেন ঢাকায়। এদিন বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে কূটনীতিক ও বিশিষ্ট নাগরিকদের সঙ্গে ঈদের শুভেচ্ছা বিনিময় করবেন ৩ বারের সাবেক এই প্রধানমন্ত্রী।

এদিকে দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান দীর্ঘদিন যাবৎ পরিবারসহ লন্ডনে বসবাস করছেন। এবারও সেখানে পরিবারের সঙ্গে ঈদ করবেন তিনি।

দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরও ঈদ করবেন ঢাকায়। এ ছাড়া দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, এম কে আনোয়ার, নজরুল ইসলাম খান, মির্জা আব্বাসও ঢাকায় ঈদ করবেন বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে সড়ক দুর্ঘটনায় আহত দলটির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য এবং সাবেক সেনা প্রধান মাহবুবুর রহমান আছেন সিএমএইচে। তার ঈদ সেখানেই কাটবে বলে ধারণা করা যাচ্ছে।

নিজ এলাকা যশোরে ঈদ করবেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম। অন্যদিকে আরেক স্থায়ী কমিটির সদস্য আ স ম হান্নান শাহ গাজীপুরের কাপাসিয়ায় ঈদের নামাজ পড়লেও ওই দিন তিনি ঢাকায় ফিরবেন বলে জানা গেছে।

দলটির স্থায়ী কমিটির প্রভাবশালী সদস্য ড. আবদুল মঈন খান দেশের বাইরে অবস্থান করছেন বলে গুঞ্জন রটেছে। এ গুঞ্জন সত্য হলে তিনি দেশের বাহিরেই ঈদ করবেন।

দলটির ভাইস চেয়ারম্যানদের মধ্যে শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, এয়ার ভাইস মার্শাল (অব.) আলতাফ হোসেন চৌধুরী ,সেলিমা রহমান ঢাকায় ঈদ করবেন বলে জানা গেছে। আরেক ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকার ঈদ কাটবে নিউইয়র্কে।

চেয়াপারসনের উপদেষ্টাদের মধ্যে আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী চট্টগ্রামে, অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেনের ঈদ কাটানোর সম্ভাবনা বেশি নিজ এলাকা ঝালকাঠিতে।