মেইন ম্যেনু

বিএনপি ক্ষমতায় থাকা মানেই খুন-সহিংসতা

প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা বলেছেন, বিএনপি ক্ষমতায় থাকা মানেই হত্যা-খুন-সহিংসতা। তারা আহসান উল্লাহ মাস্টার এমপি, সাবেক অর্থমন্ত্রী কিবরিয়াসহ আওয়ামী লীগের বহু নেতাকর্মীকে হত্যা করেছে। ২১ আগস্ট গেনেড হামলা চালিয়েছে। ২০১৩ সালে সরকার উৎখাতের নামে, ২০১৪ সালে নির্বাচন ঠেকানার নামে সবচেয়ে ন্যাক্কারজনক হত্যা চালিয়েছে। আড়াই হাজারের মতো গাড়ি, বাস, ট্রাক পুড়িয়েছে। মানুষকে পথে বসিয়ে দিয়েছে। অর্থ আত্মসাৎ, মানি লন্ডারিং আমেরিকার আদালতেই প্রমাণিত হয়েছে।

জাতীয় সংসদে বৃহস্পতিবার রাতে অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। বিএনপি চেয়ারপারসনের দুর্নীতির চিত্র তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, খালেদা জিয়া কালো টাকা সাদা করেছে। রাষ্ট্রীয় ব্যাংক থেকে শত শত কোটি টাকা লুটপাট করেছে। তার আমলে দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন ছিল বাংলাদেশ। সিঙ্গাপুরের আদালতে প্রমাণিত হয়েছে মানি লন্ডারিংয়ের ঘটনা। বিএনপি নেত্রীর বড় ছেলেকে দুর্নীতি ও কর্মকাণ্ডের কারণে যুক্তরাষ্ট্রে ঢুকতে দেয়া হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের বিচার বিভাগে একটি মামলাও হয়েছে। সেটা প্রমাণিত হয়েছে। বিভিন্ন কোম্পানি থেকে কত টাকা ঘুষ নিয়েছিল তা প্রকাশ হয়েছে। জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট ফান্ডের নামে লুটপাট করেছে। সেটার প্রমাণ আছে, এতিমের টাকা আত্মসাৎ করেছে। বিশ্বে অর্থপাচারকারীদের তালিকায়ও বিএনপি নেত্রীর ছেলের নাম উঠে এসেছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের রাজনীতি দেশের কল্যাণের জন্য ও মানুষের কল্যাণের জন্য। বাজেট ৫ ভাগ বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। রিজার্ভ ও প্রবৃদ্ধি বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছি। ৭ ভাগে প্রবৃদ্ধি উন্নীত করেছি। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে রেখেছি। এটা আরো কমিয়ে আনার চেষ্টা করছি। ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে যাতে থাকে তা চেষ্টা করছি। ১২০ ভাগ পর্যন্ত বেতনভাতা বৃদ্ধি করেছি, কোনো সরকার এত বেতন বাড়াতে পারেনি। মাথাপিছু আয়ও বাড়ানো হয়েছে। দারিদ্রের হার কমিয়েছি।

২০২১ সালের পূর্বেই বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হবে জানিয়ে তিনি বলেন, এরইমধ্যে দেড় কোটি মানুষকে সরকারি চাকরি দিয়েছি। বেসরকারি চাকরির ব্যবস্থা করেছি। বিদেশেও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দিয়েছি। বিভিন্ন বেসরকারি খাতকে উন্মুক্ত করে দিয়েছি। ব্যাংক-বীমা, টিভি রেডিও করে দিয়েছি। সারা বাংলাদেশে তথ্য কেন্দ্র ও ডিজিটাল সেন্টার করে দিয়েছি। বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দার মধ্যে উন্নয়ন করে যাচ্ছি। রফতানি আয়ও বৃদ্ধি পেয়েছে। মাতৃ ও শিশু মৃত্যুর হার কমেছে। শিক্ষার হার ৭১ ভাগের উপরে আনতে সক্ষম হয়েছি। বিনামূল্যে বই বিতরণ করেছি। সর্বোপরি বাংলাদেশ এখন এগিয়ে যাচ্ছে।