মেইন ম্যেনু

বিকল্প ফেসবুক ব্যবহারকারীরা নিরাপদ নন

যারা বিকল্প উপায়ে ফেসবুক বা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের অ্যাপসগুলো ব্যবহার করছেন, তারা সিকিউরড ব্রাউজিং করছেন না। যার কারণে নিজেরাই ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন বলে মন্তব্য করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

তিনি বলেন, ‘বিকল্প উপায়ে ফেসবুক ব্যবহার করা গেলেও তাতে ইন্টারনেটের গতি খুব ধীর। এই গতিতে রাষ্ট্রের নিরাপত্তা বিঘ্নিত হওয়ার কোনো সুযোগ নেই।’

শনিবার রাজধানীর একটি হোটেলে টেলিকম রিপোর্টার্স নেটওয়ার্ক বাংলাদেশ (টিআরএনবি) আয়োজিত ‘মোবাইল ডিভাইসেস অ্যান্ড ইটস রোল ইন ন্যাশনাল সিকিউরিটি’ বিষয়ক গোলটেবিল সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

তারানা হালিম বলেন, ‘জঙ্গি তৎপরতা বা সন্ত্রাসী হামলা করার জন্য যে ধরনের দ্রুত গতির ইন্টারনেট দরকার, তা পাওয়ার কোনো সুযোগ এখন নেই। সুতরাং বর্তমানে বিকল্প উপায়ে ফেসবুক ব্যবহার করে রাষ্ট্রের কোনো ক্ষতি করার সুযোগ নেই। তবে রাষ্ট্রের নিরাপত্তার স্বার্থে সবার সহযোগিতা কাম্য।’

অনুষ্ঠানে বিটিআরসি চেয়ারম্যান ড. শাহাজাহান মাহমুদ, কাস্টমসের মহাপরিচালক ড, মঈনুল খান, এমটবের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও মহাসচিব টি আই এম নুরুল কবির, র‌্যাবের কমিউনিকেশন উইং এর পরিচালক কমান্ডার শাহেদ করিম, ব্যারিস্টার হামিদুল মিসবাহ, ইনভিকোর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফাওয়াদ গোরায়েব সহ নিরাপত্তা এবং টেলিকখাত সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন।

উল্লেখ্য, দেশে জঙ্গি হামলা এবং সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী ও আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদের ফাঁসির রায় কার্যকরের প্রক্রিয়া চলাকালে নাশকতার আশঙ্কায় গত বুধবার দুপুর থেকে ফেসবুকসহ সামাজিক যোগাযোগের অ্যাপসগুলো বন্ধ করে দিয়েছে সরকার। তবে এরপর থেকেই বিভিন্ন উপায়ে অনেকে ফেসবুকসহ ওই অ্যাপসগুলো ব্যবহার করছে। এমনকি সরকারি লোকদেরও ফেসবুক ব্যবহারের প্রমাণ পাওয়া যাচ্ছে। এর পরিপ্রেক্ষিতে সরকারের এই সিদ্ধান্ত কতোটা কার্যকর তা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

অবশেষে শনিবার টেলিকম প্রতিমন্ত্রী ব্যাপারটির ব্যাখ্যা দিলেন।