মেইন ম্যেনু

নাটোরে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ

বিচার পাবেন না বলেই বিচার চান না দিপনের বাবা

পাওয়ার সম্ভাবনা নাই বলেই জাগৃতির কর্ণধার দীপন হত্যার বিচার চান না তার বাবা বিশিষ্ট কলামিস্ট আবুল কাশেম ফজলুল হক। এমন মন্তব্য করেছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

সাবেক এ রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘দীপনের বাবা কেন তার সন্তান হত্যার বিচার চান না তা আমাদের সবাইকে বুঝতে হবে। বিচার পাওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই বুঝতে পেরেই সন্তান হত্যার কষ্ট বুকে নিয়েও তিনি বিচার চান নাই। সরকারের একের পর এক ব্যর্থতা, দুঃশাসন ও দুর্নীতির কারণেই এমন হত্যাকাণ্ড বন্ধ হচ্ছে না।’

সোমবার বিকেলে নাটোর নবাব সিরাজ-উদ-দৌলা সরকারি কলেজ অডিটোরিয়ামে জেলা জাতীয় পার্টির দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাপা চেয়ারম্যান এসব কথা বলেন।

সরকারের ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত বলেন, ‘দেশের কোনো মানুষের নিরাপত্তা নেই। প্রতিদিন মানুষ মরছে, গুম হচ্ছে, রাস্তায় লাশ পড়ে থাকছে, নদীতে লাশ ফেলে দেয়া হয় পরিবারের সদস্যরা জানে না। সরকারের বিরুদ্ধে কথা বললে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়। কোথায় নিয়ে যাওয়া হয় তা কেউ জানে না। পরে লাশ পড়ে থাকবে, পরিবারের সদস্যরা কাঁদবে এরপর কাহিনী শেষ। তাকে আর কেউ আর মনে কববে না। দেশের মানুষ এই অবস্থা থেকে পরিবর্তন চায়।’

বাংলাদেশ এখন মৃতুকূপে পরিণত হয়েছে মন্তব্য করে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, ‘দেশের মানুষ এমন গণতন্ত্র চায় না, তারা চায় জনগণের গণতন্ত্র। প্রতিদিন খবরের কাগজ খুললেই হত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট ও দুর্নীতি ছাড়া কোনো সংবাদ পাওয়া যায় না। দেশে চরম দুঃশাসন চলছে। মানুষের কোনো নিরাপত্তা নেই।’

সরকারের প্রতি ইঙ্গিত করে এরশাদ প্রশ্ন করেন, ‘মানুষ জানতে চায় দেশে এসব কী হচ্ছে? কেন এমন হচ্ছে? আমরা কোনো উত্তর দিতে পারি না। আমি ২৪টি জেলা, সব উপজেলায় হাসপাতাল, এলজিইডি স্থাপনের মাধ্যমে সারা দেশে রাস্তা-ঘাটসহ সব ধরণের উন্নয়ন করেছি।’ এখনও প্রেসিডেন্ট পদ্ধতিতে নির্বাচন হলে আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে হারিয়ে তিনি বিজয়ী হবেন বলে দুই নেত্রীর উদ্দেশে চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দেন এরশাদ।

কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান ও নাটোর জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি মো. মজিবুর রহমান সেন্টুর সভাপতিত্বে সম্মেলনে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মো. জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য জিএম কাদের, সুনীল শুভ রায়, ফয়সাল চিশতিসহ স্থানীয় নেতারা বক্তব্য দেন।