মেইন ম্যেনু

বিজেপির মতো জিতবে বিএনপি, কংগ্রেসের মতো হারবে আ.লীগ

ভারতের সমর্থনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় রয়েছে; এমন অভিযোগ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) আ স ম হান্নান শাহ বলেছেন, সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ভারতের রাজনৈতিক দল বিজেপির মতো জয় পাবে বিএনপি আর আওয়ামী লীগ হারবে কংগ্রেসের মতো।

তিনি বলেছেন, ‘বর্তমান সরকার অবৈধ ও অনির্বাচিত। তারা জনগণের ভোটে ক্ষমতায় আসেনি। এরা মুখোশধারী গণতন্ত্রমনা। এদের কোনো জনসমর্থন নেই। কাজেই দেশে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হলে ভারতের বিজেপির মতো জয় পাবে বিএনপি, আর কংগ্রেসের মতো অবস্থা হবে আওয়ামী লীগের।’

বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে ‘মিথ্যা’ মামলায় অন্যায়ভাবে কিছু করার চেষ্টা হলে নেতাকর্মীরা বসে থাকবে না বলেও হুঁশিয়ারি দেন হান্নান শাহ।

শুক্রবার (২০ মে) দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে ‘বিপন্ন স্বাধীনতা, উপেক্ষিত আইনের শাসন’ শীর্ষক এক আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব বলেন তিনি।

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের (জিসিসি) বরখাস্ত মেয়র অধ্যাপক এম এ মান্নানের মুক্তির দাবিতে ‘গাজীপুর মহানগরের সচেতন নাগরিক ফোরাম’ এ সভার আয়োজন করে।

সরকারের উদ্দেশে হান্নান শাহ বলেন, ‘বিএনপির দিকে কামান দাগার চেষ্টা করবেন না। নিজেদের ঘর সামলান। সামনে আপনাদের একটা কাউন্সিল আসছে। সেই কাউন্সিলে কী হবে না হবে, রাজনীতিবিদ ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক হিসেবে আমরা অনেকেই তা বুঝতে পারি। আপনারা আগে থেকেই সব ঠিকঠাক করে নিচ্ছেন। কারণ, আপনাদের অতীতের একটি স্লোগান ছিল, এক নেতার এক দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ। এখন আপনারা আবার শুরু করেছেন, এক নেতার এক দেশ, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ।’

সরকার উৎখাতে ভারতে ইসরায়েলের গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদের কর্মকর্তার সঙ্গে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আসলাম চৌধুরীর বৈঠকের ঘটনাটিকে ‘ডাহা মিথ্যা’ হিসেবে উল্লেখ করে হান্নান শাহ বলেন, ‘গোপন বৈঠক শেষে মুক্ত আকাশের নিচে কেউ ছবি তুলতে পারে বলে সেনাবাহিনীর সাবেক একজন কর্মকর্তা হিসেবে আমরা জানা নেই। তাই সরকার উৎখাতের খবর ডাহা মিথ্যা ছাড়া আর কিছুই হতে পারে না।

এ প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, ‘বিএনপির ষড়যন্ত্র করার কোনো দরকার নেই। কারণ, দেশের ৯০ শতাংশ লোক এখন আওয়ামী সরকারের বিদায় চাইছে। তা ছাড়া বিএনপি কোনো ষড়যন্ত্রে বিশ্বাস করে না। বিএনপির মূল শক্তি হচ্ছে জনগণ।’

হান্নান শাহ বলেন, ‘বিএনপিকে নেতৃত্বশূন্য করতেই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা মামলা দিচ্ছে। বেগম জিয়ার হাতকে এবং নেতাকর্মীদের মানসিকভাবে দুর্বল করার জন্যই এটি করা হচ্ছে। কিন্তু এতে কোনো লাভ হবে না। সরকার হয়তো ভুলে গেছে, মামলা দিয়ে, জেলে নিয়ে বিএনপিকে কখনো দাবিয়ে রাখা যাবে না।’

তিনি হুঁশিয়ারি দিয়ে সরকারের উদ্দেশে বলেন, ‘খালেদা জিয়ার ওপর অন্যায়ভাবে কিছু করা হলে কেন্দ্র থেকে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা তা কিছুতেই মেনে নেবে না, বসেও থাকবে না। বিএনপি আজ ঐক্যবদ্ধ। তাই বলব, ভাবিয়া করিও কাজ, করিয়া ভাবিও না।

জাতীয়তাবাদী স্বেচ্ছাসেবক দলের সহ-ধর্মবিষয়ক সম্পাদক আরিফ হোসেন হাওলাদারের সভাপতিত্বে এতে আরও বক্তব্য রাখেন বিএনপির সহ-দপ্তর সম্পাদক কৃষিবিদ শামীমুর রহমান শামীম, গাজীপুর জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কাজী সাইয়েদুল আলম বাবুল, সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট সৈয়দা আসিফা আশরাফি পাপিয়া, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে, একাংশ) মহাসচিব এম আব্দুল্লাহ, গাজীপুর সদর থানা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সুরুজ আহমেদ, ছাত্রদলের বর্তমান যুগ্ম সম্পাদক মনিরুল ইসলাম, সাবেক নেতা মনির হোসেন, মেহেদী হাসান এনিস, আনু মো. শামীম প্রমুখ।