মেইন ম্যেনু

বিদায় করুন চোখের নিচের কালো দাগ

রূপের সৌন্দর্য বহিঃপ্রকাশে চোখ অন্যতম অংশ। তাই সুন্দর ও আকর্ষণীয় একজোড়া চোখ সবারই কাম্য। কিন্তু ঠিকমতো খাওয়া, শুষ্ক ত্বক, অতিরিক্ত রোদে ঘোরাঘুরি, অপর্যাপ্ত ঘুম, বয়স, ধূমপান, চিন্তা করা ইত্যাদির জন্য চোখের নিচে কালো দাগ দেখা দেয়। চোখের নিচের চামড়া পাতলা হওয়ায় সামান্য অনিয়মে দ্রুত বলিরেখা পড়ে। শুধুমাত্র চোখের এই বলিরেখা আপনার বয়স বাড়িয়ে দেয় অনেকখানি। তাই চেহারায় সতেজতা ফিরিয়ে আনতে সহজ কিছু উপায়ে বিদায় করে দিন চোখের নিচের কালো দাগ।

শসা

ময়েশ্চারাইজারের অভাবে চোখের চারপাশের ত্বকে কালো দাগ দেখা দেয়। শুরুতে এটি গুরুত্ব না দিলে পরবর্তিতে স্থায়ী হয়ে যায়। যা দূর করা কঠিন হয়ে পড়ে। শসা পাতলা করে কেটে ফ্রিজে রেখে দিন। তারপর এটি চোখের নিচে ১৫ মিনিট রাখুন। এটি প্রতিদিন করলে কাঙ্ক্ষিত ফল পাওয়া সম্ভব।

অলিভ অয়েল

অলিভ অয়েল দিয়ে সহজে বলিরেখা দূর করা যায়। চোখের চারপাশে অলিভ অয়েল ম্যাসাজ করে লাগিয়ে কয়েক মিনিট পরে ধুয়ে ফেলুন। নিয়মিত করলে উপকার পাওয়া সম্ভব।

ডিমের সাদা অংশ

ডিমের সাদা অংশ চামড়া টানটান করার জন্য সুপরিচিত। এটি ত্বকের বলিরেখা দূর করে ত্বক টানটান করে থাকে। চোখের চারপাশে ডিমের সাদা অংশ লাগিয়ে নিন। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন।

আদা-মধু

এক চা চামচ আদার রস এবং আধা চা চামচ মধু মিশিয়ে নিন। এটি চোখের নিচে এবং চোখের চারপাশে ১০ মিনিট ম্যাসাজ করুন। এক ঘণ্টা পর ধুয়ে ফেলুন। মধু ত্বক ময়েশ্চারাইজ করে এবং ত্বকের রক্ত চলাচল সচল রাখে।

নারিকেল তেল

নারিকেল তেলে থাকা ফ্যাট ত্বকের পুষ্টি যোগায়। প্রতিদিন ১০ মিনিট চোখের চারপাশে নারিকেল তেল ম্যাসাজ করুন। এটি সারারাত রেখে পরের দিন সকালে ধুয়ে ফেলুন।

সাবধানতা

– অতিরিক্ত সূর্যের আলো থেকে দূরে থাকলে চোখের পাশে কালো দাগ কম হয়।

– বাইরে বের হলে নিয়মিত সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন।

– বাইরে যাওয়ার সময় সানগ্লাস পরে বের হওয়া উচিৎ।

– চোখের নিচে পাউডার ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন, এটি ত্বক শুষ্ক করে দেয়।

– প্রতিদিন ৮ ঘণ্টা ঘুমানোর চেষ্টা করুন। পর্যাপ্ত ঘুমে চোখের নিচের দাগ দূর হয়।

– চোখের চারপাশে সাবান ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। ত্বকের উপযোগী ফেসওয়াস ব্যবহার করলে ক্ষতি কম হয়।