মেইন ম্যেনু

বিদেশি হত্যায় শুধু বড় ভাই নয় আরো নেতা জড়িত

ইতালির নাগরিক তাভেল্লা সিজার হত্যাকাণ্ডে শুধু বড় ভাই নয় আরো রাজনীতিবিদ জড়িত বলে মন্তব্য করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। মঙ্গলবার সচিবালয়ের নিজ কক্ষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

কামাল বলেন, ‘বিদেশি হত্যাকাণ্ড নিয়ে কোনো জজ মিয়া নাটক সাজানো হবে না। প্রকৃত ঘটনাই সবার সমনে প্রকাশ করা হবে।’

দুটি হত্যাকাণ্ড পৃথক লোকজন করলেও মোটিভ একই উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, ‘গোয়েন্দারা হত্যাকাণ্ডের রহস্যের নানা দিক উদঘাটন করেছেন। এখন সব মিলিয়ে দেখার জন্য বিলম্ব হচ্ছে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, তাবেলার হত্যাকারীরা নিজেদের আড়াল করতে ও সরকারের দৃষ্টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার চেষ্টা করেছিল। কিন্তু এটা পরিষ্কার হয়ে গেছে হত্যাকাণ্ডের পেছনে কারা ছিল, কী উদ্দেশ্য, কেন হত্যা করা হয়েছে। এই হত্যাকাণ্ডের পেছনে কে তা আমরা জানি। দু-একদিনের মধ্যে বিস্তারিত জানানো হবে।’

মন্ত্রী বলেন, ‘দেশকে সন্ত্রাসী রাষ্ট্রে পরিণত করার জন্য দেশি-বিদেশি চক্র ষড়যন্ত্র করছে। এই ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে এই দুই বিদেশি নাগরিককে খুন করা হয়েছে। এ হত্যাকাণ্ডে শুধু বড় ভাই নয়, রাজনীতির সঙ্গে জড়িত এমন অনেকেই সম্পৃক্ত রয়েছে। ইতোমধ্যে চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অন্যদেরও শিগগিরই গ্রেপ্তার করা হবে। এদের মধ্যে যারা দেশে আছেন তারা আমাদের গোয়েন্দা নজরদারিতে রয়েছেন। আর যারা বিদেশে রয়েছেন, নিশ্চিত হলে তাদের দেশে নিয়ে আসা হবে। কারণ আমরা মনে করি, কোনো দেশ সন্ত্রাসীদের আশ্রয় দেবে না’

জাপানি নাগরিক হত্যাকারীদেরও খুব দ্রুত ধরা হবে বলে জানান মন্ত্রী।

উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে বিদেশি হত্যায় নেতাদের জড়ানো হচ্ছে- বিএনপির এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘তাদের অভিযোগ সত্য নয়। বিনা প্রমাণে আমরা কোনো কিছু করি না। আমাদের কাছে অকাট্য প্রমাণ রয়েছে। সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে আমরা কথা বলছি।’

হোসনি দালানের তাজিয়া মিছিলের প্রস্তুতিতে বোমা হামলার ঘটনার অগ্রগতি সম্পর্কে আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ভিডিও ফুটেজ এসে গেছে। জড়িতদের আমরা তাড়াতাড়ি ধরে ফেলব।